নিউজপলিটিক্সরাজ্য

বাংলায় এনআরসি দরকার, শান্তনুকে পাশে রেখে হুঙ্কার শুভেন্দুর

বাংলায় এনআরসি চালু করতে হবে বলেই মনে করছেন শুভেন্দু অধিকারী



বাংলায় সবার আগে যেটা প্রয়োজন সেটা হলে এনআরসি। বনগাঁর বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুর কে পাশে বসিয়ে আবারও এই একই মন্তব্য করলেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। বনগাঁয় একটি জনসভায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কড়া সমালোচনা করে, শুভেন্দুর বক্তব্য, বাংলায় সবার আগে যেটা প্রয়োজন সেটা হল এনআরসি চালু করা। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একটাও ভালো কাজ করেননি, তাই তার কোন প্রশংসা করতে পারছিনা আমরা।

নাম না করে মুখ্যমন্ত্রীর সমালোচনা করে শুভেন্দু অধিকারী কটাক্ষ করেন, নির্বাচনের আগে মুখ্যমন্ত্রী সুস্থ পায়ে ব্যান্ডেজ লাগিয়ে ঘুরে বেড়িয়েছেন। যদি মুখ্যমন্ত্রী নিজে ভাল কাজ করতেন তাহলে আমরা সমালোচনা করতাম না, বরং প্রশংসা করতাম। কিন্তু দিদিমণি এখনো পর্যন্ত একটাও ভালো কাজ করেননি। রাজ্যের প্রকল্প নিয়ে রাজ্য সরকারকে কটাক্ষ করলেন শুভেন্দু অধিকারী। মতুয়াদের নিয়ে নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহ কথা দিয়েছিলেন। শান্তনু ঠাকুর কে মন্ত্রী করে তার কথা রেখেছেন তারা। কিন্তু দিদিমণি এখনো পর্যন্ত একটাও কথা রাখেননি।

পাশাপাশি বৃহস্পতিবার বনগাঁ মতিগঞ্জে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শান্তনু ঠাকুর কে সংবর্ধনা দেওয়ার সময় শুভেন্দু অধিকারী তার বক্তব্য পেশ করেন। শুভেন্দু অধিকারী বলেন, রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনের পর বিজেপি কর্মীদের ওপর যেভাবে আক্রমণ হয়েছে, তা স্বাধীনতার পরে এই প্রথম। এখনো পর্যন্ত এই আক্রমণে ৫১ জন শহীদ হয়েছেন। পাশাপাশি, ভ্যাকসিন দুর্নীতি নিয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে কটাক্ষ করেছেন শুভেন্দু অধিকারী। তার সাথে সাথেই হাইকোর্টের রায় কে স্মরণ করেও শুভেন্দু অধিকারীর বক্তব্য, আজকের দিনটা পশ্চিমবঙ্গের জন্য অত্যন্ত স্মরণীয়।

সভা শেষে আবার উপস্থিত সাংবাদিকদের সঙ্গে বৈঠক করেন শুভেন্দু অধিকারী। সেখানে তিনি হাইকোর্টের রায় প্রসঙ্গে কথা বললেন। তিনি বললেন, মানবতার জয় গণতন্ত্রের জয়। আরো বলেন, এতদিন পর্যন্ত মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছিল। আমাদের সংবিধানের মূল স্তম্ভ অর্থাৎ বিচার ব্যবস্থা মানবাধিকারকে রক্ষা করতেই তৈরি করা হয়েছে। সেই মানবাধিকারকে রক্ষা করার জন্য এগিয়ে এসেছে আমাদের বিচার ব্যবস্থা। পাশাপাশি, বিজেপি জেলা সভাপতি অনুপস্থিত প্রসঙ্গে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, ” এটা কোন বড় কথা নয়, এটা নিয়ে আপনাদের ভাবতে হবে না। “

Related Articles

Back to top button