ক্রিকেটখেলানিউজ

মেলবোর্নে বুমরাহ ম্যাজিকে কুপোকাৎ ক্যাঙ্গারু বাহিনী

Advertisement

মেলবোর্ন: বক্সিং ডে টেস্ট শুরুর আগে অনেক তর্ক-বিতর্ক চলছিল। কারণ, এই ম্যাচে খেলছেন না বিরাট কোহলি। কিন্তু, বিরাটের অভাব একেবারে বুঝতে দিলেন না দলের অন্তর্বর্তীকালীন অধিনায়ক অজিঙ্কা রাহানে। তাঁর বুদ্ধিদীপ্ত নেতৃত্বের প্রশংসা সকলেই করেছেন। তিনি যে বোলারদের অধিনায়ক, সেটা আগে থেকেই জানা ছিল। তবে আজ ভারতীয় বোলাররাও সেই সৌজন্যটা সুদে আসলে ফিরিয়ে দিলেন। যশপ্রীত বুমরাহ একাই নিলেন চারটে উইকেট। তিনটে নিলেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। জোড়া উইকেট শিকার করলেন মহম্মদ সিরাজ। আর একটা উইকেট নেন রবীন্দ্র জাদেজা। ফলস্বরূপ প্রথম ইনিংসে ১৯৫ রানেই গুটিয়ে যায় ক্যাঙারু ĺবাহিনী। এরপর ব্যাট করতে নামে ভারত। প্রথম দিনের শেষে ভারত এখনও ১৫৯ রান পিছিয়ে রয়েছে। উইকেটে রয়েছেন শুভমান গিল (২৮) এবং চেতেশ্বর পূজারা (৭)।

আজ টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক টিম পেইন। কিন্তু, তাঁর সেই সিদ্ধান্ত খুব একটা কার্যকরী হয়নি। সৌজন্যে অবশ্যই ভারতীয় বোলাররা। আজ মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে কার্যত জ্বলে উঠেছিলেন ভারতের অভিজ্ঞ পেসার জসপ্রীত বুমরাহ। তিনি একাই চারটে উইকেট শিকার করেন। আজ দিনের শুরুতে একটু হলেও উইকেটে আর্দ্রতা ছিল। সেটাকেই কাজে লাগিয়েছিলেন মুম্বইয়ের এই পেসার। ৪.২ ওভারে জসপ্রীত বুমরাহের বলে ঋষভ পান্থের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান জো বার্নস। আজ তিনি রানের খাতা খুলতে পারেননি।

এরপর ম্যাথিউ ওয়েডকে সঙ্গী করে দলের স্কোরবোর্ড সচল রাখেন মারনাস লাবুশেন। কিন্তু, অশ্বিনের ঘূর্ণিতে এই পার্টনারশিপ খুব একটা বেশিদূর এগোতে পারেনি। এই দুই ব্যাটসম্যানের মধ্যে ২৫ রানের পার্টনারশিপ গড়ে ওঠে। ১২.৫ ওভারে রবিচন্দ্রন অশ্বিনের বলে রবীন্দ্র জাদেজার হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরলেন ম্যাথু ওয়েড (৩০)। এরপর ভারতীয় বোলারদের হাতে আসে সবথেকে বড় উইকেটটা। ১৪.৩ ওভারে ফিরলেন স্টিভ স্মিথ। তিনি রানের খাতা খুলতে পারেননি। এবারও আঘাত হানলেন সেই অশ্বিন। লেগ গালিতে দাঁড়িয়ে অসাধারণ একটা ক্যাচ ধরলেন চেতেশ্বর পূজারা।

টেস্ট ক্রিকেটে প্রথমবার প্রথম ইনিংসে কোনও রান না করেই আউট হতে হল স্টিভ স্মিথকে। অ্যাডিলেড টেস্টের প্রথম ইনিংসেও স্মিথ মাত্র ১ রান করে ফিরে গিয়েছিলেন। সেবারও তাঁর উইকেটটি শিকার করেছিলেন অশ্বিন। এই ম্যাচেও তাঁর ঘূর্ণিতে কাবু হয়ে পড়লেন স্মিথ। এরপর ট্রাভিস হেডকে সঙ্গী করে লম্বা রানের পার্টনারশিপ (৮৬) গড়ে তোলেন লাবুশেন। এটাই জুটিই অস্ট্রেলিয়ার স্কোরবোর্ডকে একটা সম্মানজনক জায়গায় পৌঁছে দেয়। অবশেষে ভাঙল পার্টনারশিপ। ৪১.৫ ওভারে জসপ্রীত বুমরাহের বলে অধিনায়ক রাহানের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরলেন ট্রাভিস হেড (৩৮)। এরপর খুব বেশিক্ষণ আর উইকেটে থাকেননি লাবুশেনও। ৪৯.৩ ওভারে শুভমান গিলের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হলেন মারনাস লাবুশেন (৪৮)। এতদিনে বোধহয় তাঁর বাবার আত্মা শান্তি পেল। ভারতীয় ক্রিকেট দলে আজই অভিষেক হয়েছে মহম্মদ সিরাজ়ের। আর অভিষেক টেস্টেই তিনি উইকেট শিকার করলেন। প্রথম টেস্টে বেশ কয়েকবার সৌভাগ্যক্রমে লাইফলাইন পেয়েছিলেন এই ক্রিকেটার। কিন্তু, বক্সিং ডে টেস্টে ভারতীয় ক্রিকেটাররা কোনও ভুল করেননি। এই উইকেটটা ভারতের কাছে যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই। ডানদিকে ডাইভ মেরে ব্যাকওয়ার্ড স্কোয়ার লেগে অসাধারণ একটা লো ক্যাচ নিলেন গিল।

বাকি উইকেটগুলো তুলে নেওয়া ছিল শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা। এরপর একে একে ফিরে যান টিম পেইন (১৩), ক্যামেরন গ্রিন (১২), মিশেল স্টার্ক (৭), নাথান লিয়ন (২০) এবং প্যাট কামিন্স (৯)। ১৯৫ রানেই অলআউট হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং ব্রিগেড।

এরপর ব্যাট হাতে নামে ভারত। মেলবোর্ন টেস্টে মহম্মদ সিরাজের পাশাপাশি অভিষেক হয়েছে শুভমন গিলেরও। অ্যাডিলেড টেস্টে পৃথ্বী শ ব্যর্থ হওয়ার পর, এই ম্যাচে তাঁকে সুযোগ দেওয়া হয়। সেই সুযোগ তিনি অব্যর্থভাবে কাজে লাগিয়েছেন। তবে ইনিংসের শুরুটা একেবারে ভ হল না ভারতের। কারণ, শূন্য রানেই ফিরে গেলেন ময়াঙ্ক আগরওয়াল। ভারতের ওপেনিং জুটির সমস্যা সেই থেকেই গেল। যাই হোক এরপর শুভমনের সঙ্গে দলের হাল ধরেন পূজারা।

Tags

Related Articles

Back to top button