নিউজপলিটিক্সরাজ্য

ধর্ষণে অভিযুক্ত ব্যবসায়ীকে আড়াল করছেন পৃথক উত্তরবঙ্গের দাবি জানানো কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জন বারলা

এই অভিযোগ ঘিরে জন বারলার বিরুদ্ধে অত্যন্ত বীতশ্রদ্ধ গেরুয়া শিবির।

ধর্ষণে অভিযুক্ত একজন ব্যবসায়ীকে আড়াল করার অভিযোগ উঠল উত্তরবঙ্গের সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী জন বারলার বিরুদ্ধে। বানারহাট থানায় তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন ডুয়ার্সের একজন আদিবাসী মহিলা। বছর তিরিশের ওই মহিলা অভিযোগ করেছেন পুরনো সম্পর্কের সুযোগ নিয়ে এলাকার প্রভাবশালী ব্যবসায়ী জয়চাঁদ আগারওয়াল বহুবার তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেছিলেন। পরবর্তীকালে মহিলা যখন বিয়ে করার কথা জানান তখন ওই ব্যবসায়ী বারবার বিষয়টি এড়িয়ে যেতে থাকেন।

তারপর মহিলা স্থানীয় সাংসদ জণ বারলার কাছে গিয়ে সাহায্যের দাবি জানান। এলাকায় বিজেপি ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত ওই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ আনেন তিনি। কিন্তু বিজেপি সাংসদ তাকে সাহায্য করার পরিবর্তে ব্যবসায়ীকে আড়াল করার কাজে লেগে পড়েন। তার পরেই তিনি বিজেপি সাংসদের বিরুদ্ধে এবং ওই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে পুলিশের মামলা দায়ের করেছেন।

যদিও এই সাংসদের বিরুদ্ধে বিতর্ক এই প্রথম নয়। পৃথক উত্তর বঙ্গ রাজ্যের দাবি জানিয়ে তিনি প্রথম সোচ্চার হয়েছিলেন। এছাড়াও জমি কেলেঙ্কারিতে তার নাম জড়িয়ে আছে। আর এবারে তার বিরুদ্ধে ধর্ষণে অভিযুক্ত এক ব্যক্তিকে আড়াল করার অভিযোগ উঠল। ফলে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা সাংসদকে নিয়ে রীতিমতো চাপে পড়ে গিয়েছে বিজেপি। অন্যদিকে আবার, গেরুয়া শিবিরের তরফ থেকে বর্তমানে জন বারলাকে সমর্থন করার কাজ চলছে। জলপাইগুড়ি জেলা সভাপতি বাপি গোস্বামী বলেছেন, এই ঘটনায় মন্ত্রীর নাম জড়ানো শুধুমাত্র একটি রাজনৈতিক অভিসন্ধি। যদি এই ঘটনা এত দিন আগে ঘটে থাকে তাহলে মহিলা এতদিন পরে কেন অভিযোগ জানিয়েছেন সেই নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন জলপাইগুড়ি জেলা বিজেপি সভাপতি। যদিও বিজেপি সাংসদ এর পক্ষ থেকে এই বিষয়ে কোন মন্তব্য শোনা যায়নি এখনো পর্যন্ত।

বানারহাট থানায় অভিযোগ পাওয়া মাত্রই পুলিশ সুপার দেবর্ষি দত্ত তৎপরতার সাথে কাজ করা শুরু করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, জয়চাঁদ আগারওয়ালের বিরুদ্ধে এই নির্যাতিতা আদিবাসী মহিলার অভিযোগ গ্রহণ করা হয়েছে। পুলিশ সূত্রে জানা যাচ্ছে প্রথমে তিনি স্থানীয় সাংসদের কাছে অভিযোগ নিয়ে গিয়েছিলেন কিন্তু তিনি তাকে ফিরিয়ে দেন। পরিবর্তে ব্যবসায়ীকে আড়াল করার অভিযোগ উঠেছে জনের বিরুদ্ধে। ইতিমধ্যেই পুলিশ জয়চাঁদ আগারওয়ালকে গ্রেফতার করেছে। বৃহস্পতিবার তাকে জলপাইগুড়ি আদালতে তোলা হবে। মামলার জল যদি আরো গড়ায় তাহলে হয়তো বিজেপি সাংসদকেও জেরার মুখে পড়তে হতে পারে। সম্ভাবনা আছে তার বিরুদ্ধেও অপরাধীকে আড়াল করার অভিযোগে মামলা দায়ের হবে এবং তাকেও গ্রেপ্তার করা হবে।

Related Articles

Back to top button