দেশনিউজ

এবারে ‘মেধা’ থাকার কারণে জামিন পেলো ধর্ষক, আইআইটি গুয়াহাটি মামলায় প্রশ্নের মুখে অসমের আদালত

কি ঘটেছিলো পুরো ঘটনাটা?

ছাত্র মেধাবী এবং রাজ্যের ভবিষ্যতে সম্পদ হওয়ার কারণে এবারে এক ধর্ষককে জামিনে মুক্তি দিল গুয়াহাটি আদালত। ঘটনাটি ঘটেছে আইআইটি গোহাটিতে যেখানে দিন কয়েক আগে সহপাঠীকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্রের বিরুদ্ধে। গত ২৮ মার্চ এই ঘটনাটি ঘটেছিল। এই ঘটনার পরে ৩ এপ্রিল ওই ছাত্রী তার সহকারীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করে। এই অভিযোগের ভিত্তিতেই ওই সহপাঠী ছাত্রকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ।

প্রাথমিক তদন্তের পর ছাত্রের সঙ্গে ওই ধর্ষণ মামলার যোগাযোগ পাওয়া গেছিল, সেই কারণেই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে পুলিশের তরফ। ২৮ শে মার্চ আইআইটি চত্বরে ওই ছাত্রীকে মাদকজাতীয় কিছু খাইয়ে ধর্ষণ করা হয়েছিল বলে পুলিশ সূত্রে জানা যাচ্ছে। আদালতে মামলা উঠলে অভিযুক্ত ওই 21 বছরের যুবক নিজের জামিনের আবেদন জানিয়েছিলেন। ১৩ আগস্ট জামিনের আবেদনের শুনানিতে বিচারপতি অজিত বোরঠাকুর দুই পক্ষের সমস্ত সওয়াল জবাব শোনেন।

বিচারপতি জবাবে বলেন, “অভিযুক্তের বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা রয়েছে। তবে অভিযোগকারী এবং অভিযুক্ত দুজনেই অত্যন্ত মেধাবী পড়ুয়া। তবে তাদের বয়স কম এবং দুজনেই আলাদা আলাদা রাজ্য থেকে এসেছেন। তারা দুজনে টেকনিক্যাল কোর্স করছেন। চার্জ গঠন হয়ে গেলে মামলার বিচারের স্বার্থে অভিযুক্তকে বন্দি রাখার তেমন কোনো প্রয়োজন নেই। এছাড়াও, অভিযুক্ত জামিন পেলেন প্রমাণ নষ্ট করবে না এই বিষয়টি সুনিশ্চিত করছে পুলিশ।”

এরপরে ৩০ হাজার টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে বিচারপতি ওই অভিযুক্তের জামিন মঞ্জুর করেন। সাথেই আদালতের বক্তব্য, জামিনে মুক্ত হলেও সাক্ষ্য-প্রমাণ নষ্ট এবং প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে সাক্ষীদের প্রভাবিত করার কোনো সম্ভাবনা নেই এই অভিযুক্তের। এই কারণেই জামিন মঞ্জুর করা হয়েছে। তার পাশাপাশি বিচারপতি সরাসরি জানান, এটি উল্লেখ করা প্রয়োজন যে আদালত শুধুমাত্র জামিনের আবেদনের সুষ্ঠুভাবে নিষ্পত্তি করেছে। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে পাওয়া প্রমাণের গ্রহণযোগ্যতা কিংবা ত্রুটি সম্পর্কে কোনো বিচার করা হয়নি এখনও পর্যন্ত। মামলা চলবে তার বিরুদ্ধে, কিন্তু আপাতত শুধু মাত্র তিনি জামিনে মুক্ত রয়েছেন। পরবর্তীকালে পুলিশ যেভাবে তাদের পরবর্তী তদন্ত চালাবে, এবং হাইকোর্টে শুনানিতে যেরকম রায় দেওয়া হবে সেই নিরিখে ওই ‘মেধাবী’ ধর্ষকের ভবিষ্যত নির্ধারিত হবে।

Related Articles

Back to top button