টলিউডবিনোদনভাইরাল & ভিডিও

Nusrat-Yash: ঢাক বাজানোর সময় আচমকাই লাঠি দিয়ে যশকে মারতে গেল ঈশানের মাম্মা! রইলো ভিডিও

দ্বিতীয়বার পুত্র সন্তানের বাবা হয়েছেন টলিউডের হার্টথ্রব নায়ক যশ দাশগুপ্ত। নুসরত ও যশের সন্তান ঈশানকে নিয়ে চর্চা খুব একটা কম হয়নি। নুসরতের অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার খবর প্রকাশ্যে আসার পর আরো বেশি করে চর্চায় এসেছে এই জুটি। নুসরতের সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের সমীরকণ ঠিক কী, সেটা নিয়ে বার বার প্রশ্ন এসেছে। টলিপাড়া থেকে সাধারণ মানুষের জানার উৎসাহ কিছু কম ছিল না এদের সম্পর্ক কি তা জানার পর। তবে ঈশান জন্মের পর যশরত নিজের সম্পর্কের বাঁধনের সিক্রেটের ঢোর কিছু কিছু আলগা করছে।

যত দিন যাচ্ছে, ততই এই জুটির সম্পর্ক নতুন নতুন রং নিচ্ছে। রবিবার যশের জন্মদিন ছিল। আর নিজের প্রেমিকের জন্মদিনে বিস্ফোরক মন্তব্য করে খবরে এসেছেন নুসরত। পরিষ্কার জানিয়েছেন, যশ তাঁদের সন্তানের ব্যাপারে কোনওদিন কোনো আপত্তি করেনি। এমনকী, যশ জানিয়েছেন নুসরতের সাফ কথা ছিল যশ দায়িত্ব নিতে না চাইলেও এই সন্তানকে তিনি পৃথিবীতে আনবেন। 

রবিবার গোটা দিন নুসরতের ইনস্টাগ্রাম স্টোরি ছিল যশময়। নিজের জন্মদিনের দিন নুসরতের আনানো ‘ড্যাড’, ‘হাজবেন্ড’ লেখা কেক কেটেছেন, ‘মাইন’ আর লাভ সাইন দিয়ে ছবি শেয়ার করেছেন। সরাসরি না বললেও আকারে-ইঙ্গিতে মেনেই নিয়েছেন বিশ্বকর্মা পুজোয় তাঁর সিঁথিতে যে সিঁদুর দেখা গিয়েছিল, তা ছিল যশের নামেই।

গত সোমবার শুরু হয়ে গিয়েছে দুর্গাপুজো। এইদিন যশরত জুটিকে দেখা গেল পুজো মণ্ডপে। পুজোর বিচারক হিসেবে এইদিন পুজার নানা মণ্ডপ ঘুরে দেখলেন তাঁরা। আর সেই সময়েই ঢাকি ও পুজো উদ্যোক্তাদের অনুরোধ রাখতে যশের সঙ্গে ঢাক বাজাতে দেখা গেল তাঁকে। সেই সময় হঠাৎই লাঠি নিয়ে যশকে মারতে যান নুসরত। আর তা দেখে কিছুটা চমকে যান যশও। না না সত্যি সত্যি মারেননি। আসলে খুনসুটিতে মেতেছিলেন দুজনেম তারপর যশের গা ঘেঁষে দাঁড়িয়ে হাসি-ঠাট্টার মধ্যে দিয়ে পুজো উপভোগ করতে দেখা গিয়েছে। 

আর সেই ভিডিও সামনে আসতেই বহু নেটিজেন কটাক্ষ করেছেন নুসরতকে। অবশ্য এর আগে মুসলিম হওয়ার কারণে বারবার সমালোচিত হন নায়িকা। তারওপর সন্তানের পিতৃপরিচয় নিয়ে প্রথম থেকেই তিনি নানান ধোঁয়াশা তৈরি করে রেখেছিলেন। যদিও ছেলের জন্মের পর বার্থ সার্টিফিকেট যশকেই বাবা হিসেবে জানিয়েছেন তিনি। কারও কারও দাবি, ‘একজন জননেতা, একজন তারকা হিসেবে নুসরতের উচিত সমাজের জন্য নতুন দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি করা। নিজের নানান কেচ্ছা দিয়ে সমাজকে কলুষিত করা নয়।’

Related Articles

Back to top button