নিউজপলিটিক্সরাজ্য

‘ঘরে সবার মা বোন আছে, ভোটটা ভেবে দিবি’, ভাইরাল ভিডিও নিয়ে মুখ খুললেন কৌশানি

কৃষ্ণনগর উত্তরের তারকা তৃণমূল প্রার্থী হয়েছেন কৌশানি মুখোপাধ্যায়

×
Advertisement

একুশে বাংলা বিধানসভা নির্বাচন জোরকদমে শুরু হয়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যেই প্রথম দুই দফা নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। বাকি এখনও ৬ দফা নির্বাচন। আর তাতে জয়লাভের জন্য প্রচারে ঝড় তুলতে রাস্তায় নেমে পড়েছে সব রাজনৈতিক দলের প্রার্থীরা। তৃণমূল তথা বিজেপিতে একাধিক টলিউড তারকা প্রার্থী হয়ে দাঁড়িয়েছেন। এবার তৃণমূলের টিকিট পেয়েছেন কৃষ্ণনগর উত্তরের প্রার্থী টলি নায়িকা কৌশানী মুখোপাধ্যায়। তার বিরুদ্ধে বিজেপির হেভিওয়েট নেতা মুকুল রায়। দুজনেই তাদের বিধানসভা কেন্দ্রে প্রচারে ঝড় তুলেছে। প্রায় প্রতিদিন রাস্তায় বেরিয়ে জনসংযোগ স্থাপনের চেষ্টা করছে তারা। আসলে কোনো দলই অন্যদলকে ভোট যুদ্ধের ময়দানে এক ইঞ্চি জমি ছেড়ে দিতে নারাজ। তবে সম্প্রতি তৃণমূল প্রার্থী কৌশানী মুখোপাধ্যায়ের একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়াতে ব্যাপক ভাইরাল হচ্ছে।

Advertisement

মুকুল রায় নামক একটি ফেসবুক পেজ থেকে কৌশানী মুখোপাধ্যায় এর একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়াতে পোস্ট করা হয়েছে। সেই ভিডিও পোস্ট করার পরেই তা রীতিমতো ভাইরাল হয়ে যায় নেট দুনিয়ায়। সেই ভিডিওতে কৌশানিকে বলতে শোনা গিয়েছে, “ঘরে সবার মা বোন আছে, ভোটটা ভেবে দিবি।” কৌশানির এমন কথায় রীতিমতো বিতর্ক সৃষ্টি করেছে বঙ্গ রাজনীতিতে। অনেকের ধারণা এই তারকা তৃণমূল প্রার্থী ভোট প্রচার করতে বেরিয়ে লোকজনকে শাসিয়ে ভোট আদায় করার চেষ্টা করছে। এই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হতেই নেটিজেনরা তৃণমূলের তীব্র সমালোচনা করেছে। কিন্তু এরই মাঝে কৌশানি সাফ জানিয়েছে যে তার কথার ভুল ব্যাখ্যা করে নেটদুনিয়ায় ছড়াচ্ছে গেরুয়া শিবির।

তৃণমূল তারকা প্রার্থী কৌশানী মুখোপাধ্যায় সম্প্রতি তার অফিশিয়াল ফেইসবুক পেইজে একটি লাইভ করেছেন এবং তার ভাইরাল ভিডিও সম্বন্ধে মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেছেন, “আমার গোটা বক্তব্যের মধ্যে খানিকটা অংশ কেটে নিয়ে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার করছে বিজেপি। এটি পদ্ম শিবিরের আইটি সেলের কাজ। ওরা আমার সম্পূর্ণ ভিডিওটি না দেখিয়ে কিছু অংশ কেটে নিয়ে কথার মানে পরিবর্তন করার চেষ্টা করছে। আমার বক্তব্য একটু অন্যরকম ছিল। পুরো ভিডিওটি দেখলে তা বোঝা যাবে। খুব শীঘ্রই আমার টিমের লোক গোটা ভিডিওটি প্রকাশ করবে। আসলে আমি ওখানে বিজেপি জিতলে বাংলার মা-বোনেদের দুর্দশার কথা বলেছি। উত্তরপ্রদেশের হাথরস বিজেপি শাসিত রাজ্যে নারী সুরক্ষার প্রকৃষ্ট উদাহরণ। এই মডেল আমরা বাংলায় কখনোই আসতে দেবো না।”

Advertisement

Related Articles

Back to top button