×
ভাইরাল & ভিডিও

একটা-দুটো নয়, ৮ বউকে নিয়ে সুখে সংসার করছেন এই যুবক

Advertisement

আমরা বর্তমান যুগে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে এমন অনেক ঘটনার কথা জানতে পারি, যা শুনলে রীতিমত অবাক হতে হয়। ছোটবেলায় গল্পে শুনতাম আগেকার দিনের রাজারা একাধিক রাজ্যের রাজকন্যাদের বিয়ে করে সংসার করতেন। তবে বাস্তবে বর্তমানে এমন ঘটনা দেখা যায় না বললেই চলে। একের অধিক বিয়ে করা এখন আইন বিরুদ্ধ। তবে সম্প্রতি এক যুবকের কথা জানা গিয়েছে যিনি আটবার প্রেমে পড়েছেন এবং আটবারই বিয়ে করেছেন। বর্তমানে নিজের ৮ বউকে নিয়ে সুখে সংসার করছেন একই ছাদের তলায়। উল্লেখ্য, তাদের মধ্যে কোনো রকম কোনো বিবাদ নেই।

Advertisement

থাইল্যান্ড নিবাসী এই যুবকের নাম ওং দাম সোরোত। তিনি পেশায় একজন ট্যাটু শিল্পী। তার ব্যক্তিত্ব মহিলাদের আকর্ষণ করে তার দিকে। তাকে দেখেই প্রেমে পাগল হয়ে যান তারা। এইভাবেই এক এক করে বর্তমানে থাইল্যান্ডের এই যুবক ৮ মহিলার স্বামী হয়েছে। তাদের মধ্যে একজনের একটি ছেলে রয়েছে এবং দুজন এই মুহূর্তে অন্তঃসত্ত্বা। প্রত্যেকেই পালা করে অপেক্ষা করেন নিজের স্বামীর সাথে সহবাস করার জন্য। কারোরই কোন অভিযোগ নেই সোরোতের উপর। তাদের বক্তব্য সোরোত খুবই যত্নবান একজন পুরুষ। তিনি সকলের ভীষণভাবে খেয়াল রাখেন। সম্প্রতি তাদের একটি সাক্ষাৎকার ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ার পাতায়।

জানা গিয়েছে, সোরোত তার প্রথম স্ত্রীকে এক বন্ধুর বিয়েতে দেখেছিলেন। সেখানেই তারা দুজন দুজনের প্রেমে পড়ে যান। পরে তারা বিয়ে করেন। বর্তমানে তাদের একটি পুত্র সন্তানও রয়েছে। দ্বিতীয় বউয়ের সাথে বাজারে প্রথম দেখা হয়েছিল তার। পরে তারা বিবাহিত হন। তিনি বিবাহিত সেকথা জানা সত্ত্বেও তাকে বিয়ে করতে রাজি হয়েছিলেন তিনি। তৃতীয় স্ত্রীর সঙ্গে তার হাসপাতালে দেখা হয়েছিল।

Advertisement

এরপর এক এক করে চতুর্থ, পঞ্চম, ষষ্ঠ , সপ্তম, অষ্টম বউয়ের স্বামী হয়ে ওঠেন তিনি। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আবার কখনো ঘুরতে গিয়ে আবার কখনো মন্দিরে বারবার প্রেমে পড়েছেন তিনি। আর মেয়েরাও তার ব্যক্তিত্বের প্রতি আকৃষ্ট হয়েছেন বারবার। সম্প্রতি থাইল্যান্ডের এই যুবকের কথা সামনে আসতেই অবাক হয়েছেন মানুষজন। তার কথা এখন মিডিয়াতে রীতিমতো চর্চিত। বর্তমান যুগে এমন ঘটনা ঘটতে পারে তা ধারণাতেই ছিলনা নেটিজেনদের। সেক্ষেত্রে খুব স্বাভাবিকভাবেই এমন খবর সামনে আসার পর থেকেই তা রীতিমতো ঝড়ের গতিতে নেটদুনিয়ায় ছড়িয়ে গিয়েছে।

Related Articles

Back to top button