Today Trending Newsনিউজপলিটিক্সরাজ্য

‘বিজেপির তিন গুণ: লুঠ, দাঙ্গা আর মানুষ খুন’, এগরা থেকে কটাক্ষ মমতার

আজ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পূর্ব মেদিনীপুরের এগরা, পটাশপুর ও মেচেদায় জনসভা করবেন

×
Advertisement

একুশে বাংলা বিধানসভা নির্বাচন যতই এগিয়ে আসছে ততই রাজ্যের রাজনৈতিক দলগুলি তাদের পূর্ণ উদ্যমে ভোগ প্রচারের কাজে মাঠে নেমে পড়ছে। নবান্ন ধরে রাখার জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় খুব ভালভাবেই জানেন যে তার জঙ্গলমহলের ভোটব্যাঙ্ক প্রয়োজন। তাই মুখ্যমন্ত্রী হুইল চেয়ারে বসেই গত দু’দিন ধরে জঙ্গলমহলের বিভিন্ন এলাকায় জনসভা করছেন। আজ অর্থাৎ শুক্রবার নির্বাচনী প্রচারে ঝড় তুলতে আবারো জঙ্গলমহলের এক জেলাতে প্রচারে গেলেন মুখ্যমন্ত্রী। গতকাল বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী গরবেতা, কেশওয়ারি ও কলাইকুন্ডলাতে জনসভা করার পর আজ শুক্রবার মুখ্যমন্ত্রী পূর্ব মেদিনীপুরের এগরা, পটাশপুর ও মেচেদায় জনসভা করবেন।

Advertisement

আজ অর্থাৎ শুক্রবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সকালেই পূর্ব মেদিনীপুরের এগরায় জনসভায় উপস্থিত ছিলেন। তিনি সেখান থেকে বিজেপির বিরুদ্ধে একাধিক ইস্যুতে গলায় সুর তুলেছেন। তিনি বলেছেন, “ওরা শুধু মুখেই বলে হরি হরি, আর পিছনে করে ডাকাতি। বাংলায় ওদের জায়গা হবে না। নরেন্দ্র মোদি সরকার হলে একটি দাঙ্গাবাজ সরকার। একটা করাপ্টেড সরকার। বিজেপির তিনটি গুণ আছে। সেটা হল লুঠ,দাঙ্গা আর মানুষ খুন। তাই ওদেরকে এবার একটা ভোট দেয়া যাবে না।” এছাড়াও প্রার্থী তালিকা প্রসঙ্গে বিজেপিকে বিদ্রুপ করে তিনি বলেছেন, “তৃণমূলের গদ্দার মীরজাফররা আজকে বিজেপির প্রার্থী। আর ওদের পুরনো প্রার্থীরা ঘরে বসে কাঁদছে। তৃণমূল থেকে যারা চোর চিটিংবাজী করে গেছে, তারা আজ বিজেপিতে গিয়ে ছড়ি ঘোরাচ্ছে।”

এছাড়াও মুখ্যমন্ত্রী আগামী দিনে জঙ্গলমহলের আরো উন্নয়ন করার অঙ্গীকার নিয়েছেন। তিনি বলেছেন, “দিঘাতে কনভেনশন সেন্টার তৈরি হয়েছে এবং ইকো ট্যুরিজম পার্ক তৈরি হচ্ছে। এছাড়াও খুব শীঘ্রই জগন্নাথের একটি মন্দির তৈরি হবে। অন্যদিকে ব্যবসা-বাণিজ্যতে বিপ্লব আনতে দীঘা তাজপুর বন্দর তৈরি হচ্ছে। এই বন্দর তৈরি হলে একদিকে যেমন বেকার যুবক যুবতীরা কর্মসংস্থান পাবে ঠিক অন্যদিকে বন্দর মারফত ব্যবসা-বাণিজ্যে বিনিয়োগের জোয়ার আসবে। এছাড়াও তিনি জানিয়েছেন যে ছোট শিল্পের জন্য বছরে এবার ১ লাখ কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হবে। এতে অনেক বাংলার ছেলে মেয়েদের চাকরি হবে। এছাড়া তৃণমূল জিতলে বিনা পয়সায় রেশন দেয়া হবে। বিনা পয়সার রেশন দুয়ারে দুয়ারে পৌঁছে যাবে।”

Advertisement

Related Articles

Back to top button