কলকাতানিউজরাজ্য

সরকারি চাকরির পরীক্ষা দিতে হবে বাংলায়, দাবি বুদ্ধিজীবীদের

কলকাতা: সরকারি চাকরির (Govt Job) পরীক্ষা বাংলায় (Bengali) ভাষায় দেওয়ার সুযোগ করতে হবে। গত তিনবছর যাবৎ এই দাবী নিয়ে লড়াই করছে বাংলাপক্ষ। এবার বাংলাপক্ষের এই দাবিতে সহমত দিয়ে পাশে দাড়ালেন বাংলার লেখক (Writer), কবি (Poet), সাহিত্যিক (Litrature), সঙ্গীতশিল্পীরা (Singer)। ভিডি বার্তার মাধ্যমে একে একে তাঁরা সকলে তাঁদের মতামত জানাচ্ছেন। এই তালিকায় রয়েছেন জয় গোস্বামী (Joy Goswami), মনোরঞ্জন ব্যাপারী (Monoranjan Bapari), গায়ক সিধু Sidhu), সুবোধ সরকার (Subodh Sarkar) ও পবিত্র সরকারের (Pabitra Sarkar) মতো ব্যক্তিত্বরা।

২০২০ সালে ১২ ও ১৩ই ডিসেম্বর নারী ও শিশু সুরক্ষা দফতরের আয়তাধীন ICDS-এর পরীক্ষায় বাংলা ভাষাকে বঞ্চনা নিয়ে প্রতিবাদ দেখিয়েছিল বাংলাপক্ষ। বাংলাপক্ষ সংগঠনের কৌশিক মাইতি জানান, ‘ICDS নিয়োগের পরীক্ষায় বাঙালির বঞ্চনা সমস্ত কল্পনাকে ছাপিয়ে গিয়েছে। পরীক্ষার প্রশ্নপত্র প্রকাশ্যে আসতেই চক্ষু চড়কগাছ হয়েছে বহু বাঙালি পরীক্ষার্থীদের। বাংলা ভাষার প্রশ্নপত্রে কোনও অপশন-তো নেই, উত্তর দিতে হবে প্রতিটা প্রশ্নেরই। কিন্তু হিন্দির ক্ষেত্রে প্রচুর অপশন ছিল। প্রতিটা ক্ষেত্রে ৮ টা প্রশ্নের মধ্যে ৫ টি করতে হবে। মানে একজন সহজেই হিন্দি ভাষার পেপারে প্রচুর নম্বর পেতে পারে এবং পরীক্ষার কাট অফ মার্কস পেতে অনেকটাই এগিয়ে থাকবে।’

কৌশিক বলেছিলেন,  ‘বাঙালিকে এই বঞ্চনা কেন? হিন্দিভাষীদের এই অতিরিক্ত সুবিধা পাইয়ে অনৈতিকভাবে চাকরি পাওয়ানো হচ্ছে কেন? নিজের মাটিতে, নিজের রাজ্যে বাঙালি চাকরি পাবে না কেন ? রাজ্য সরকারি চাকরি পাবে বহিরাগতরা? বিহার-উত্তরপ্রদেশের মানুষের ভোটেই কি নির্বাচিত হয় বাংলার সরকার? পিএসসি কর্তৃপক্ষরা প্রশ্নপত্র খতিয়ে দেখেনি?

PSC-এর প্রশ্নপত্রের  কোনো গাইডলাইন নেই? এই দুর্নীতিতে কারা কারা যুক্ত? বাংলা পক্ষ এই  ইস্যুতে বাঙালি সহ সকল ভূমিসন্তান চাকরি প্রার্থীদের সাথে লড়ছে। এই বঞ্চনা আমরা আর মানবো না।’ সংগঠনের তরফে আরও জানানো হয়েছিল, PSC-এর চেয়ারম্যানকে এই ঘটনার বিস্তারিত জানানো হয়েছে।  তিনি বলেছেন,  ‘এটা কোনও ব্যাপার না’। তিনি গোটা বিষয়টাকে সম্পুর্ণ ভেবে বলে এড়িয়ে গিয়েছেন বলে অভিযোগ বাংলাপক্ষের।

Related Articles

Back to top button