জ্যোতিষ

রোজ এই ৫টি কাজ করুন, ভাগ্য উজ্জ্বল হবে, অর্থের কোন অভাব থাকবে না

×
Advertisement

জ্যোতিষশাস্ত্র খুব বিশেষ বিদ্যা, এর সাহায্যে আমরা জানতে পারে যে কোনও সংকট থেকে কিভাবে মুক্তি পাওয়া যায় ও আগামী সংকটের বিষয়েও সাবধান হওয়া যায় এতে এমন অনেক ব্যবস্থার কথা বলা হয়েছে, যা অবলম্বন করলে জীবনে সুখ-সমৃদ্ধি আনা যায়। জ্যোতিষ শাস্ত্রে উল্লিখিত কিছু প্রতিকার অবলম্বন করে একজন ব্যক্তি নিজের ভাগ্য উজ্জ্বল করতে পারেন।

Advertisement

ভাগ্য উজ্জ্বল হবে এই প্রতিকার গুলো মেনে চললে:-

আসলে কিছু রাশির গ্রহ ও নক্ষত্র এমন যে অল্প পরিশ্রমে অনেক উন্নতি হয়। একই সময়ে, এমন অনেক রাশি আছে যাদের দিনরাত পরিশ্রম করেও জীবনে সফল হতে পারেন না। চলুন এমনই কিছু জ্যোতিষশাস্ত্রীয় প্রতিকারের কথা বলি।

Advertisement

১) মন্দিরে যাওয়ার আগে এই বিষয়টি মাথায় রাখুন:-

হিন্দু ধর্মের বিশ্বাস অনুসারে, সকালে ঘুম থেকে উঠে স্নান করার পরই ঈশ্বরের মূর্তি বা মূর্তি স্পর্শ করা উচিত। স্নান না করে পূজার বাড়িতে যাওয়ার একটি অশুভ প্রভাব রয়েছে এবং মা লক্ষ্মী সেই বাড়িতে আসেন না।

২) খাবার খাওয়ার সময় এই বিষয়টি মাথায় রাখুন:-

জ্যোতিষশাস্ত্র বলে যে খাবার সবসময় পূর্ব দিকে মুখ করে খান। এতে করে জীবনে সুখ আসে এবং অর্থ ও শস্যের অভাব হয় না। খাওয়ার সময় জুতা এবং চপ্পল পরবেন না। এটি অন্নপূর্ণা মাতার অপমান বলে বিবেচিত হয়।

৩) প্রতিদিন পূজা করুন:-

পূজার ঘরে নিয়মিত পূজা করুন এবং প্রদীপ জ্বালান। এতে করে দেবতাদের আশীর্বাদ ঘরে থাকে। বাড়িতে তুলসী গাছ থাকলে প্রতিদিন সন্ধ্যায় তার কাছে ঘি এর প্রদীপ জ্বালাতে হবে।

৪) প্রবাহিত জলে ফুল প্রবাহিত করুন:-

জ্যোতিষশাস্ত্র অনুসারে, পুজোর জন্য দেওয়া ফুলগুলি শুকিয়ে যাওয়ার পরের দিন তা ফেলে দেওয়া উচিত নয়। এগুলি সংগ্রহ করা উচিত এবং কিছু চলমান জলে সম্মানের সাথে প্রবাহিত করা উচিত। এছাড়া যেকোনো গর্তে এই ফুলগুলো টিপে দিতে পারেন।

৫) এই দিকে গঙ্গাজল ছিটিয়ে দিন:-

জ্যোতিষ শাস্ত্র অনুসারে বাড়ির উত্তর-পূর্ব কোণ অত্যন্ত শুভ। নেতিবাচক শক্তিও খুব দ্রুত এই দিকে প্রবেশ করে। তাই এই দিকে নিয়মিত গঙ্গাজল ছিটিয়ে দিন। এর ফলে নেতিবাচক শক্তি কমে যায় এবং ঘরে ইতিবাচক শক্তির সঞ্চার হয়।

এখানে প্রদত্ত তথ্য শুধুমাত্র অনুমান এবং তথ্যের উপর ভিত্তি করে। এখানে উল্লেখ করা জরুরী যে ভারত বার্তা যে কোনো ধরনের বিশ্বাস, তথ্যকে সমর্থন করে না। কোন তথ্য বা অনুমান প্রয়োগ করার আগে সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করুন।

Related Articles

Back to top button