বিনোদনবলিউড

প্রয়াত বাপ্পি লাহিড়ীর সোনার গয়না কী হবে? জানালেন ছেলে বাপ্পা লাহিড়ী

×
Advertisement

বাপ্পি লাহিড়ী ইন্ডাস্ট্রির ডিস্কো কিং। ৮০-৯০ দশকে সাধারণকে ডিস্কো গানের সাথে পরিচয় করিয়েছিলেন তিনিই। তবে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে ৬৯ বছর বয়সে প্রয়াত হন তিনি। দীর্ঘদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন গায়ক। মুম্বাইয়ের এক নামি হাসপাতালেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বাপ্পি লাহিড়ী। ডিস্কো কিং ছাড়াও তাঁর আরেকটি নাম ছিল, ‘গোল্ডম্যান’। সোনার গয়না পরতে ভালোবাসতেন বলে তাকে বহুমানুষ ভালোবেসে ‘গোল্ডম্যান’ বলেই ডাকতেন। তবে তার প্রয়াত হওয়ার পর থেকেই একটা প্রশ্ন মানুষের মনে ঘুরে বেড়াচ্ছে। বাপ্পি লাহিড়ী পাড়ি দিয়েছেন না ফেরার দেশে। তবে তার অবর্তমানে তার অত সোনার গয়না কি হবে?

Advertisement

সম্প্রতি বাপ্পি লাহিড়ীর ছেলে বাপ্পা লাহিড়ী সূত্রে জানা গিয়েছে, তার বাবা প্রয়াত হয়েছেন তবে তার সমস্ত জিনিস তিনি সংরক্ষণ করতে চান। তার সমস্ত জিনিস গায়কের পরিবার একটি সংগ্রাহালয় সংরক্ষণ করে রাখার পরিকল্পনা করছেন। সোনার পাশাপাশি গায়কের সংগ্রহে ছিল বিভিন্ন ধরনের ঘড়ি, চশমা, জুতো। সেইসমস্ত জিনিস গায়কের ভক্তদের জন্য এবং গায়ককে শ্রদ্ধা জানাতে একটি নির্দিষ্ট সংগ্রাহালয় সাজিয়ে রাখা হবে।

সোনা জিনিসটাকে গায়ক ভীষণ শুভ বলে মনে করতেন। কাজের সূত্রে দেশের কম জায়গা ঘোরেননি তিনি। যেখানেই যেতেন সেখান থেকেই শোনা নিয়ে আসতেন। সোনার সাথে আধ্যাত্বিক যোগ আছে বলেই বিশ্বাস করতেন বাপ্পি লাহিড়ী। বাড়ি থেকে যখনই বের হতেন নিজের সোনার গয়না পড়ে যেতেন। এই সোনার গয়নাই তার একটা আলাদা পরিচিতি তৈরি করেছিল বিশ্বের দরবারে। তিনি ‘গোল্ডম্যান’ হিসেবেই পরিচিত হতে থাকেন একটা সময়ের পর থেকেই। বাপ্পি লাহিড়ী প্রয়াত হওয়ার পর থেকেই তার সেইসমস্ত সোনার গয়না একটি সংগ্রাহালয়ে সংরক্ষণ করে রাখার পরিকল্পনায় তার ছেলে। সেই সংগ্রাহালয়ের দরজা খোলা থাকবে সাধারণের জন্যও।

Advertisement

গায়ক হিসেবে বাপ্পি লাহিড়ীর কম অবদান নেই সঙ্গীত জগতে। বলিউডের পাশাপাশি একটা সময় টলিউড দাপিয়ে বেড়িয়েছেন গায়ক। বাবা অপরেশ লাহিড়ীর সূত্রেই সঙ্গীতের সাথে পরিচয় তার। তবলা বাজানো দিয়ে শুরু করলেও পরবর্তীকালে গায়ক এবং সঙ্গীত পরিচালক হিসেবেই আত্মপ্রকাশ করেন তিনি। ছোট থেকেই নামিদামি তারকাদের সাথে ওঠাবসা তার। তার চলে যাওয়া সঙ্গীত জগতের এক অপূরণীয় ক্ষতি, তা মানছেন সকলেই। তিনি চলে গেলেও তাঁর সৃষ্টি রয়ে যাবে আজীবন।

Related Articles

Back to top button