Today Trending Newsনিউজপলিটিক্সবিনোদনরাজ্য

তৃণমূলে যোগ দিলেন টলি তারকা নীল-তৃণা

পার্থ চট্টোপাধ্যায় এর হাত ধরে নীল তৃণা তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেছেন

×
Advertisement

একুশে বিধানসভার নির্বাচন যতই এগিয়ে আসছে ততই শোনা যাচ্ছে টলিউড তারকাদের রাজনীতিতে পা দেবার খবর। এখন গোটা টলিউড রাজনীতির আঙিনায় ধরা দিয়েছে। একের পর এক অভিনেতা অভিনেত্রী তৃণমূল বা বিজেপিতে এসে যোগদান করেছে। এরমধ্যে আজ অর্থাৎ শনিবার তৃণমূলে যোগদান করলেন টলিউড ধারাবাহিকের সদ্যবিবাহিতা রোমান্টিক কাপেল নীল তৃণা জুটি। বেশ কয়েকদিন আগে ধুমধাম করে বিয়ে করে খবরের শিরোনামে উঠে এসেছিলেন এই জুটি। আজ শনিবার নীল তৃণা পার্থ চট্টোপাধ্যায় এর উপস্থিতিতে তৃণমূলে যোগদান করেন। তাদের সাথে আজ তৃণমূলের সৈনিক হয়েছেন টলিউড প্রযোজক অঙ্কিত দাসও।

Advertisement

তৃণমূলে যোগদান করে নীল ভট্টাচার্য বলেছেন, “যে মানুষকে দেখে ছোট থেকে বড় হয়েছি ও অনুপ্রাণিত হয়েছি আজ তারই দলে তার পাশে থেকে কাজ করার সুযোগ পেলাম। এটা একটা ফ্যান বয় মোমেন্ট। দিদি সর্বদা আমার অভিনয় কেরিয়ারের পাশে ছিলেন। শুধুমাত্র অভিনয় বললে ভুল হবে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বাস্থ্য, শিক্ষা সবক্ষেত্রে সাধারণ মানুষের পাশে আছেন।” সেই সাথে নীল ভট্টাচার্য পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের তারিফ করে বলেছেন, “পার্থ দা শিক্ষাক্ষেত্রে আজ বাংলায় আমূল পরিবর্তন এনে দিয়েছে। করোনার সময় গোটা শিক্ষাব্যবস্থাকে ডিজিটাল করেছেন এই পার্থ দা। এই দলে যোগদান করতে পেরে আমি খুব কৃতজ্ঞ।”

আজ তৃণমূলে যোগদান করে জনপ্রিয় অভিনেত্রী তৃণা সাহা তৃণমূল কংগ্রেসের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছেন। তিনি দলে যোগদান করার পর সংবাদমাধ্যমের সামনে বলেছেন, “দিদিকে আমি সর্বপ্রথম আমার ধন্যবাদ জানাবো এবং আজ দিদি চেয়েছিলেন যে আমি দলের হয়ে কাজ করি। তাই আমি আজ তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করলাম। মমতা ব্যানার্জি শিল্পীদের জন্য অনেক কিছু করেছেন। গোটা আর্টিস্ট ফোরাম আজ ওনার জন্যই বাংলা মাথা তুলে দাঁড়িয়ে আছে। এছাড়া শিল্পী ছেড়ে দিয়ে এক সাধারণ মানুষের আঙ্গিকে ভাবতে গেলে দিদি সবসময় বিশেষত করণা পরিস্থিতিতে ও আম্ফান ঘূর্ণিঝড়ের সময় সাধারণ মানুষের সাহায্যের জন্য ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। এছাড়াও রাজ্যজুড়ে তৃণমূল কংগ্রেসের একাধিক প্রকল্প যেমন সবুজ সাথী, কন্যাশ্রী প্রমূখ বাংলার অনেক মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়েছে। উনি সাধারণ মানুষের পাশে যেমনভাবে স্বতঃস্ফূর্তভাবে দাঁড়ান, তাতে কি আমি অনুপ্রাণিত হয়েছি। একজন মহিলা হয়ে উনি হাজার বাধা পেরিয়ে অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন। আমার মনে হয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে থেকে বাংলায় উন্নয়নের জোয়ারে শরিক হওয়া উচিত সবার। তৃণমূল দল যে আমাকে যোগ্য মনে করেছে তা আমার পরম সৌভাগ্যের ব্যাপার।” এছাড়াও তিনি এদিন বলেছেন, “রাজ্যের উন্নয়ন করার জন্য আমরা সব রকম পরিস্থিতিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে ছিলাম, আছি ও থাকবো।”

Advertisement

Related Articles

Back to top button