টলিউডবিনোদন

শ্রীলেখার সঙ্গে ডেটে যাওয়ার পর দত্তক নেওয়া সারমেয়কে ‘খুন’ করল ‘রেড ভলেন্টিয়ার্স’ শশাঙ্ক! ক্ষোভ প্রকাশ অভিনেত্রীর



অভিনেত্রীর সাথে ডেটে যাওয়ার লোভ করে এক পথ সারমেয়কে দত্তক নিয়েছিলেন। ডেট শেষ হওয়ার কিছুদিনের মাথায় সেই সারমেয়কে খুন করলো ডেটে যাওয়ার যুবক। এইরকম অভিযোগ করলেন দময়ন্তী সেন। হ্যাঁ কথা হচ্ছে, যে সারমেয় দত্তক নেওয়ার জন্য শ্রীলেখা মিত্রর সঙ্গে ডেটে গিয়েছিলেন শশাঙ্ক ভাবসর। সেই শশাঙ্কই সারমেয়কে খুন করলেন।

এক মাস আগে জুলাই এর শুরুতে শ্রীলেখা নিজের ফেসবুক পেজে পোস্ট করেছিলেন, যিনি পথপশুদের যত্ন করবেন, ভালবাসবেন এবং পথপশুর সঙ্গে ছবি তুলে আপলোড করবেন, তার সঙ্গেই কফি ডেটে যাবেন। এমন কথা দিয়েছিলেন শ্রীলেখা। সেই কথা মতোই রেড ভলান্টিয়ার শশাঙ্ক ভাবসর এক কুকুর ছানাকে দত্তক নেন। শর্ত পূরণ করারে তাঁর সঙ্গে কফি ডেটে গিয়েছিলেন তিনি। চায়েওয়ালা ক্যাফেতে হয়েছিল সেই ডেট। যেখানে শশাঙ্ক অভিনেত্রীকে ইমপ্রেস করার জন্য জানিয়েছিলেন, শ্রীলেখার ডাক নাম যেহেতু টুম্পা, সেই কারণেই তিনি ছোট্ট সারমেয়টিকে টুম্পা নামেই ডাকবেন।

একমাস যেতে না যেতে সারমেয়ের প্রতি প্রেম শশাঙ্কের উধাও হয়ে গেল। সোমবার ১১.১৯ মিনিট নাগাদ করা ফেসবুক লাইভে দময়ন্তী তাঁর বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ আনেন। শ্রীলেখা মিত্রর নাম উল্লেখ করে তিনি জানান, সুস্থ একটি ‘শিশু’কে তিনি দত্তক নেওয়ার জন্য দিয়েছিলেন, যাকে খুন করেছেন শশাঙ্ক। শুধুমাত্র তারকা শ্রীলেখা মিত্রর সঙ্গে একান্তে সময় কাটানোর জন্য এই কাজ করেছেন তিনি।

দময়িন্তী আরো জানান, তিনি প্রায়শই টুম্পার খোঁজ নিতেন। তবে সবসময় শশাঙ্ক কোনও আপডেট দিতেন না। সোমবার দুপুরেও খোঁজ নিতে শশাঙ্ক দময়ন্তীকে জানিয়েছিলেন, টুম্পা ভাল আছে। পুরোনো কিছু ভিডিও পাঠিয়েছিলেন তাঁকে। এরপর শশাঙ্ককে নতুন ভিডিও পাঠাতে বলেছিলেন দময়ন্তী। এমনকি শশাঙ্কের বাড়ি গিয়ে টুম্পাকে দেখে আসার কথাও জানিয়েছিলেন। কিন্তু রাতেই শশাঙ্ক তাঁকে জানান, দুর্ঘটনায় টুম্পার মৃত্যু হয়েছে। তখনই তিনি প্রশ্ন করেন ছোট্ট একটি সারমেয় বাড়ির ঘরে থাকলে কীভাবে তার দুর্ঘটনায় মৃত্যু হতে পারে? উত্তর পাওয়া যায়নি।

আর দময়ন্তির এই পোস্টের ঠিক ১১ মিনিট পর রাত ১১.৩১ মিনিট নাগাদ শশাঙ্ক নিজের ফেসবুক পেজে পোস্ট করে লেখেন,“টুম্পা আর আমাদের মধ্যে নেই।” শুধু এই না এরপর তিনি আবার শশাঙ্ক আবার ফেসবুক পেজে লেখেন, “আমার ভুল সত্যিই মেনে নিলাম মাথা পেতে।”

বর্তমানে জুরিখ শহরে রয়েছেন শ্রীলেখা মিত্র। সেখান থেকেই দময়ন্তীর ভিডিও দেখেছেন এবং কমেন্টবক্সে লেখেন, “আমার নিজেকে অপরাধী মনে হচ্ছে। কেন যে ওই বদমাশটাকে দিলাম। “ এরপর ক্ষোভ প্রকাশ করলেন অভিনেত্রী নিজের ফেসবুক পেজে।শ্রীলেখা নিজের ফেসবুকের ওয়ালে লেখেন, ‘শশাঙ্ক ভাবসর তুমি না রেড ভলেন্টিয়ার্স? আমার থেকে যে কুকুরের বাচ্চাটিকে নিলে তার হদিশ দাও। এত বড় সাহস তোমার! বাচ্চাটাকে রাখতে না পারলে নিয়েছিলে কোন আস্পর্ধায়? আমার সঙ্গে ডেটে যাওয়ার জন্য? ছি, তুমি রেড ভলেন্টিয়ার্সের নামে কলঙ্ক। তোমাকে হাতের সামনে পেলে মেরেই ফেলতাম। দময়ন্তী, ছাড়বি না এটাকে, আর আমাকেও ক্ষমা করিস… এর শেষ দেখে ছাড়ব শশাঙ্ক!’

শ্রীলেখার এই পোস্ট দেখে অনেকেই অভিনেত্রীকে সমর্থন করেছেন। দময়ন্তীর লেখা পোস্ট দেখে পোষ্যর অযত্নের জন্য আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও বলেছেন সেই যুবকের বিরুদ্ধে। তবে অনেকে আবার এভাবে ‘রেড ভলেন্টিয়ার্স’দের নাম ক্ষোভ প্রকাশ করার জন্য বাম-মনষ্ক শ্রীলেখার সমালোচনাও করেছেন। তাঁদের মতে, যে কেউ চাইলে নিজেকে রেড ভলেন্টিয়ার্স বলে দাবি করতে পারে। ফেসবুকের ফেজেও লাখ লাখ সদস্য। শ্রীলেখারই উচিত ছিল যাচাই করে সাবধানতা অবলম্বন করে পোষ্যকে দেওয়া।

Related Articles

Back to top button