টলিউডবিনোদন

প্রতিবন্ধী যুবকের সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেন সাংসদ-অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী

Advertisement

অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তীর নাম বারবার উঠে আসে খবরের শিরোনামে। সাংসদ হওয়ার পর তিনি অনেককেই বিভিন্ন ভাবে সাহায্য করেছেন। কেউ তাঁর কাছে সাহায্য চেয়ে নিরাশ হয়ে ফেরেননি যেমন ফিরলেন না নন্দগোপাল। নন্দগোপাল এক প্রতিবন্ধী তরুণ। কিছুদিন আগে মিমি তাঁর একটি ভিডিও পোস্ট করেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। মিমির ভিডিও ভাইরাল হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নেটিজেনদের মন্তব্যে ভরে যায় মিমির কমেন্ট বক্স। নেটিজেনদের মধ্যে ছিলেন নন্দগোপালও। তিনি মিমিকে কমেন্ট করে প্রণাম জানিয়ে বলেন, তাঁর পা আগুনে পুড়ে গিয়েছে, মিমি যদি তাঁকে একটু সাহায্য করেন, তাহলে তিনি মিমির কাছে চিরকৃতজ্ঞ থাকবেন। মিমি নন্দগোপালকে সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দেন। তিনি নন্দগোপালকে তাঁর পার্সোনাল ইনবক্সে নন্দগোপালের ফোন নম্বর পাঠাতে বলেন। নন্দগোপাল মিমিকে অনেক ধন্যবাদ জানিয়েছেন।  এর আগে ‘চা-কাকু’ মৃদুলবাবুকেও সাহায্য করেছিলেন মিমি। এছাড়া পশুপ্রেমী মিমি প্রায়ই পথকুকুরদের জন্য কাজ করেন।

কিছুদিন আগেই মুক্তি পেয়েছে মিমি চক্রবর্তী ও অনির্বাণ ভট্টাচার্য অভিনীত ফিল্ম ‘ড্রাকুলা স‍্যার’। এই ফিল্মে মিমির অভিনয় যথেষ্ট প্রশংসিত হয়েছে। দেবালয় ভট্টাচার্য পরিচালিত এই ফিল্ম করোনা আবহেও বক্স অফিসে বেশ ভালোই ব্যবসা করেছে। এমনকি এই ফিল্মটি হিন্দিতে ‘ডাব’ করার কথাও চলছে। এছাড়া সম্প্রতি মিমি ও জিৎ অভিনীত ফিল্ম ‘বাজি’র ট্রেলার লঞ্চ হয়েছে ইউটিউবে। ট্রেলারটি লঞ্চ হতেই মুহূর্তে তা ভাইরাল হয়ে যায়। ‘বাজি’ ছবির এর অধিকাংশ অংশের শুটিং হয়েছে লন্ডনে।

অভিনেত্রী হিসেবে ব্যস্ত থাকলেও সাংসদ হিসেবেও যথেষ্ট কাজ করেন মিমি। প্রায়ই নিজের পাটুলির অফিসে বসে সাধারণ মানুষের সমস্যার কথা শোনেন এবং তা সমাধান করার ব্যবস্থা করেন তিনি। করোনা পরিস্থিতিতে লকডাউনের সময় মিমি নিজের উদ্যোগে ত্রাণ বন্টন করেছিলেন। তবে তাঁর কেন্দ্র দক্ষিণ কলকাতার যাদবপুরের বাসিন্দাদের একাংশ অভিযোগ করেছেন, মিমি যাদবপুরের উন্নয়নের জন্য কোন কাজ করছেন না। কিন্তু মিমি জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে যাদবপুরের কিছু এলাকার যা পরিস্থিতি তাতে সেই এলাকাগুলির উন্নয়নে কিছু সময় লাগবে।

Tags

Related Articles

Back to top button