×
টলিউডবিনোদন

বৃষ্টি মাখা দুপুরে ছেলে কেশবকে গান শোনালেন নতুন মাম্মা মধুবনী, ভাইরাল মিষ্টি ভিডিও

Advertisement

২০১০ সালে শুরু একদল টিনেজদের গল্প। টিনেজদের গল্প আগে হিন্দি ধারাবাহিকে বেশি দেখানো হত। তবে এই প্রথম স্টারজলসা ‘ভালোবাসা ডট কম’ ধারাবাহিক স্টার জলসায় শুরু করেন। এই ধারাবাহিকের প্রধান দুই চরিত্র ওম তোড়া ওরফে রাজা মধুবনীর প্রথম ধারাবাহিক চলে। স্কুল বন্ধু তারপর কলেজে উঠে প্রথম ভালোবাসার উপলব্ধি এই নিয়ে ধারাবাহিক শুরু হয়। টানা ৪ বছর এই ধারাবাহিক চলে। আর ধারাবাহিকের টিআরপিও ছিল বেশ ভালো। তবে ধারাবাহিক শেষ হয়ে গেলেও রিলের ওম তোড়া বাস্তবে আর আলাদা হয়নি। এরা সত্যি সত্যি একে অপরকে ভালোবেসে বিয়ে করে একসাথে থাকা শুরু করেন।

Advertisement

বিয়ের ৪ বছর পর একসাথে ঘর করার পর এবার এরা দুই থেকে তিন হন। প্রথমবার বাবা মা হন মধুবনী-রাজা। গত বছর পুজোর সময়ে নানান দেবতার নাম করে এই সুখবরটি বলেই ফেলেন মধুননী। ৯ মাস অপেক্ষা করার পর এপ্রিলে প্রথম মাতৃত্বের সাধ পেয়েছিলেন অভিনেত্রী মধুবনি। ফুটফুটে পুত্র সন্তামের মা বাবা হন এই সেলেব দম্পত। এই সুখবর প্রথম রাজা নিজের সোশ্যাল মিডিয়াতে নিজের অনুগামীদের সাথে শেয়ার করেন। তিনি লেখেন, এদিন রাজা নিজের ইনস্টাগ্রামে স্ত্রী ও সন্তানের ছবি পোস্ট করে লেখেন, “আমাদের কোল আলো করে ভদ্রলোক এলেন। ভালোবাসা দেবেন।
ভালো আছেন মা ও নবজাতক।

এখন এই একরত্তিকে নিয়ে দিন কাটছে মধুবনীর। মধুবনী এবং তাঁর স্বামী রাজা দুজনেই কৃষ্ণ ভক্ত। তাই ছেলের নামে শ্রী কৃষ্ণের ছোঁয়া রেখেছেন। এই একরত্রির নাম কেশব। এই কেশব এখন রাজা আর মধুবনীর গোটা জীবন জুড়ে। তবে রাজার থেকে মধুবনী দিনের বেশিরভাগ সময়টাই কাটছে ছেলেকে নিয়ে। তবে অনুরাগীদেরও সাথেও কেশবের সঙ্গে কাটানো নানান মুহূর্ত শেয়ার করেন। তবে এখনো ছেলেকে দেখালেও কেশবের মুখ কাউকে দেখাননি। হয়তো বিশেষ কোনো দিনে ছেলেকে সবার সাথে পরিচয় করাবেন।

Advertisement

সম্প্রতি নতুন মাম্মা মধুবনী ছেলেকে নিয়ে একটি মিষ্টি ভিডিও শেয়ার করেছেন। যেখানে দেখা যাচ্ছে, বাইরে ঝমঝম করে বৃষ্টি হচ্ছে। ছেলে কেশবকে কোলে নিয়ে গান শোনাতে ব্যস্ত মধুবনী। মধুবনী লিখেছেন, কেশব তাঁর গান শুনতে নাকি খুব ভালবাসে। সত্যিই, ছোট্ট কেশব মায়ের গান শুনতে ভালোবাসে তা এই ভিডিও দেলহে স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে। অভিনেত্রীর গান করার সময়ে মায়ের মুখের দিকে হা করে তাকিয়ে ছিল। কেশবকে অভিনেত্রী মাঝে মাঝে মেয়েদের জামা পরিয়ে দেন সেকথাও স্বীকার করলেন। মা-ছেলের এমনই একান্ত মুহূর্তের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ ভালোই ভাইরাল হয়।

Related Articles

Back to top button