নিউজরাজ্য

পুজোর মুখে বন্ধ হয়ে গেল চা বাগান, কর্মহীন প্রায় দেড় হাজার শ্রমিক

Advertisement

জলপাইগুড়ি: পুজোর মুখে জলপাইগুড়ির মালবাজার মহাকুমার সাইলি চা বাগানের শ্রমিকদের কপালে চিন্তার ভাঁজ। কারণ, চা বাগানে সাসপেনশন অফ ওয়র্কের নোটিশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এর ফলে একটু আল্হাদ তো দূরের কথা, দু’বেলা দু’মুঠো কীভাবে খাবার জোগাবে, সেই চিন্তাই এখন প্রত্যেকটা শ্রমিকদের মধ্যে ঘোরাফেরা করছে। এই নোটিশেরর ফলে কার্যত পুজোর আগে সাইলি চা বাগানের প্রায় দেড় হাজার শ্রমিক কর্মহীন হয়ে পড়ল।

জানা গিয়েছে, পুজোর বোনাস নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে চা বাগানের শ্রমিক ও মালিক পক্ষের মধ্যে একটা বাদানুবাদ চলছিল। অন্যান্য চা বাগানে ২০ শতাংশ বোনাস দেওয়া হয়। কিন্তু এখানে সাড়ে ১৫ শতাংশ বোনাস হাতে ধরিয়ে দেওয়া হয় শ্রমিকদের। আর সেটা নিতে অস্বীকার করেছে সাইলি চা বাগানের শ্রমিকরা। ফলে শ্রমিক ও মালিক পক্ষের মধ্যে এর প্রতিবাদে রাস্তায় বসে বিক্ষোভ দেখিয়েছিল চা বাগানের শ্রমিকরা। কিন্তু তাতে কোনও সুরাহা হল না। অবশেষে সাসপেনশন অফ ওয়ার্ক-এর নোটিশ ঝলাল কর্তৃপক্ষ যা দেখে কার্যত মাথায় হাত চা বাগান শ্রমিকদের।

আজ, সোমবার যথারীতি রোজের মতন চা বাগানের শ্রমিকরা সকালে বাগানে এলে দেখে বাগানের গেটের গায়ে সাসপেনশন অফ ওয়ার্ক-এর নোটিশ ঝুলানো হয়েছে। যা দেখে কার্যত অবাক হয়ে পড়েছেন সকলে। চা বাগানের শ্রমিকদের মধ্যে কয়েকজন বলেছে, সকালে যখন তারা আসেন তারা তখন তারা গেটের মধ্যে নোটিশ ঝোলানো দেখেছে। ঝুলিয়ে কার্যত মালিকপক্ষ বাগান থেকে চলে গিয়েছে বলেও দাবি করেছে তারা। এরপর এই প্রতিবাদে সোচ্চার হয়ে বাগানের সামনে রাস্তায় বসে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে সকলে। ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে সমস্ত কাজ নিয়ন্ত্রণ করে।

অন্যান্য শ্রমিকদের মধ্যে হুংকার দিয়ে বলা হয় সাড়ে ১৫ শতাংশ বোনাস তাদের চাই এবং সেটাই বাগান কর্তৃপক্ষকে দিতে হবে এবং পুজোর আগেই বাগান খুলে দিতে হবে। শ্রমিকরা তাদের ন্যায্য পাওনা পায় না। তার ওপর বোনাস কম করে দেওয়া হয় এর ফলে তাদের দুবেলা দুটো ভাত জোটে না দায় হয়ে পড়েছে। তাই তারা বৃহত্তর আন্দোলনে যেতে প্রস্তুত বলেও জানিয়েছে চা বাগান শ্রমিক। এমনকি বাগান খুলে না দিলে বা ২০ শতাংশ পুজোর বোনাস না দিলে আগামী বিধানসভা নির্বাচন চা বাগানের শ্রমিকরা বয়কট করবে বলেও জানিয়েছে।

Tags

Related Articles

Back to top button