টলিউডবাংলা সিরিয়ালবিনোদনভাইরাল & ভিডিও

Adi Dev Chatterjee : মামা বাড়িতে ফুলকো লুচি, বেগুন ভাজা পেয়ে আহ্লাদে আটখানা সুদীপার নয়নের মনি আদিদেব! রইলো ভিডিও

আদিদেব চট্টোপাধ্যায়! সুদীপা চট্টোপাধ্যায় আর অগ্নিদেব চট্টোপাধ্যায়ের আদুরে পুত্র। গোটা চট্টোপাধ্যায় পরিবারের চোখের মনি। ইনি তো মায়ের হীরের টুকরো। সুদীপা হাজার কাজে ব্যস্ত থাকলেও বাড়িতে ছেলেকে ছাড়া কিছু বোঝেনা সুদীপা। স্বামী অগ্নিদেব চট্টোপাধ্যায়, প্রথম পক্ষের ছেলে আকাশ চট্টোপাধ্যায় এবং ছোট ছেলে আদিদেভকে নিয়ে ভরা সংসার সুদীপার।

আদির বয়স মাত্র ৩ এই রাজপুত্র টলিউডের সকলের খুব প্রিয়। নিজের মিষ্ঠতায়, মুখে হাসি আর গোলগাল চেহারা আর কিউটনেসে নিজের জন্য এক আলাদা ফ্যানবেস করে তুলেছে ছোট্ট আদিদেব। আদিদেব কখনো সৌরভের কাছে আদর খায় তো কখনো শুভশ্রী মিমির ও খুব পছন্দের। তবে আদিদেবের কি পছন্দ কারোর জানা আছে? এবার সেই কথা বললেন রান্নাঘরের রানী সুদীপা। বাঙালির প্রিয় জলখাবার তালিকায় একেবারে মগডালে বসে আছে এই খাবারটি। গরম ধোঁয়া ওঠা ফুলকো ফুলকো লুচি, আদ বাটি ভর্তি সাদা আলুর তরকারি সাথে যদি গোল করে কাটা বেগুন ভাজা মন্দ হয়না।

এমন খবর পেলে কোন বাঙালির ঠোঁটের কোণে হাসি ফুটবেই ফুটবে। আর প্রিয় খাবারের তালিকায় রয়েছে ছোট্ট আদিদেব চট্টোপাধ্যায়েরো।সুদীপা-অগ্নিদেবের এই একরত্তি এই বয়সেই মা বাবার মতো বেশ খাদ্যরসিক। এই প্রিয় খাবারগুলি পেয়েছে মামার বাড়িতে। সেখানেই টেবিলের ওপর যত্ন করে সাজানো এই লোভনীয় জলখাবারগুলি সাজিয়ে দেওয়া হয়েছে একরত্তিকে। ছোট ছোট লুচি দেখে আনন্দ আর ধরেনি খুদে আদিদেবের। আনন্দে নিজে নিজেই লুচি খাওয়া শুরু করে। আর তাই নিজের অনুরাগীদের দেখালেন মা তাও আবার রিল ভিডিও তৈরি করে। আর তৈরি করেই সাথে সাথে আপলোড করেছেন নেটমাধ্যমে। সঙ্গে সুদীপার ক্যপশানে লিখেছেন, ‘মামাবাড়ি ভারি মজা, কিল চড় নাই…!’ আদিদেবের এই ভিডিও শেয়ার হতেও এই স্টারকিডের কিউটনেসে মন ভরিয়েছে নেটিজেনদের।

এর থেকেই জানা গেল ছোট্ট আদিদেব আর সুদীপা রয়েছে মামাবাড়িতে। এ প্রসঙ্গে এক সংবাদমাধ্যমে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সুদীপা জানিয়েছেন যে মামাবাড়িতে শুধুই মজা করার জন্য এবার আসেনি আদিদেব। তাহলে? সামনেই দুর্গাপুজো৷ আর বালিগঞ্জের শ্বশুড়বাড়িতে হবে মায়ের আরাধনা। তাই তো নিজের বাড়ির পুজোয় সবাইকে নিমন্ত্রণ জানাতে আদিদেব মামাবাড়ি এসেছিল। সুদীপা এদিন আরো জানান, তাঁদের চট্টোপাধ্যায় বাড়ির পুজোয় বড় দাদার বিশেষ ভূমিকা আছে। প্রতি বছর সুদীপার বাপেরবাড়িতে বিভিন্নরকম তত্ত্ব পাঠিয়ে আমন্ত্রণ জানানো হয়। এবার সেই আমন্ত্রণ জানানোর ভার আকাশ নয় নিয়েছে আদিদেব। আর সেই দায়িত্ব অর্পণ করেছে আদিদেবকে তাঁর বাবা অগ্নিদেব চট্টোপাধ্যায়। 

Related Articles

Back to top button