×
অফবিট

দেশজুড়ে মহামারি, ভারত থেকে করোনার বিদায় কবে? চাঞ্চল্যকর তথ্য দিল এই বালক

Advertisement

করোনা ভাইরাসের আক্রমন আমাদের কাছে আচমকাই চলে এসেছে, এই ভাইরাসের নেই কোন ওষুধ। তাই গোটা বিশ্ব একেবারে বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছে। কিন্তু আপনি কি জানেন গত বছর আগস্ট মাসে মাত্র ১৪ বছরের একটি বালক এই ঘটনাটির ভবিষ্যৎবাণী করে দিয়েছিল। জ্যোতিষ শাস্ত্রে আপনি যদি বিশ্বাস না করেন, এই বালকটির কথা তো আপনাকে বিশ্বাস করতেই হবে। কারণ সে যে কথাটা বলেছে তার হাতেনাতে ফল আমরা এখন ভোগ করছি। এই ১৪ বছরের বালক এই ভিডিওটিতে যা যা বলেছে সব সত্যি হয়ে গেছে।

Advertisement

সে বলেছে যে, ২০১৯ এর নভেম্বর মাস থেকে ২০২০ এপ্রিল মাস পর্যন্ত গোটা পৃথিবী বিধ্বস্ত হয়ে যাবে। শুধু তাই নয়, কোন কোন দেশ গুলো বেশি বিধ্বস্ত হবে তারও একটা তালিকা এই বালকটি করে দিয়েছিল। সে বলেছে, ‘চীন দেশ বেশি বিধ্বস্ত হবে’, ‘আকাশপথ এতে বেশি আক্রান্ত হবে’, ‘এই আক্রমন থেকে বাচতে এবং গোটা পৃথিবীকে বাঁচাতে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে’। সমস্ত কথা বলে গেছে এই ২০ মিনিটের ভিডিওতে। এখনকার অবস্থার সঙ্গে আপনি মিলিয়ে দেখতে পারেন প্রতিটি কথা মিলে যাবে। সে আরেকটি কথা বলে ‘এটা গোটা পৃথিবীর জন্য ভয়ংকর হবে’। কথাটা কি একদম সত্যি নয়? শুধুমাত্র কি চীন হয়েছে?

চীন থেকে করোনাভাইরাস এক একটা দেশকে পুরো ঘিরে ধরেছে। গোটা বিশ্ব এখন জর্জরিত। ২০ মিনিট এর এই ভিডিওর ১২.২০ সেকেন্ডে এই বালকটি একটি কথা বলেছিল সেখানে সে বলে চীন দেশটি সবচেয়ে বেশী আক্রান্ত হবে, চীন আক্রান্ত হলেও চীন আপাতত নিজেকে সামলে উঠেছে, কিন্তু গোটা বিশ্ব এখনও লড়াই করে চলেছে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে। এই বালকটি আরেকটি কথা যোগ করেছিল ‘rich country’ অর্থাৎ ধনী দেশগুলো বেশি আক্রান্ত হবে। একটু ভেবে দেখুন কথাটা কি সত্যি না! ইতালি , আমেরিকা এই সমস্ত উন্নত দেশ গুলি ধুলিস্যাৎ হয়ে যাচ্ছে। শহরগুলি পরিণত হয়েছে প্রেম নগরে।

Advertisement

জ্যোতিষী কে দিয়ে হাত দেখানো, তার দেওয়া পাথর পরা এইসব যদি আপনি বিশ্বাস না করেন, সেটা আপনার একান্ত নিজস্ব ব্যাপার, কিন্তু এই বালকটির কথা যে সত্যি। তা সেই সময় মানুষ বিশ্বাস না করলেও এখন হাতেনাতে তার প্রমাণ পাচ্ছে। প্রত্যেকটা কথা কে আপনি যদি মিলিয়ে মিলিয়ে দেখেন, তাহলে দেখবেন প্রত্যেকটা কথাই ১০০% ফলে গেছে। ভিডিওটা দেখুন দেখে নিজেই বিচার করুন যে জ্যোতিষ শাস্ত্র ঠিক না ভুল? একটা কথা জানবেন জ্যোতিষশাস্ত্র কিন্তু একটি বিজ্ঞান। জ্যোতিষীরা ভন্ড হতে পারে, তারা হয়তো জ্যোতিষশাস্ত্র কে একটা ভুল দিকে নিয়ে গিয়ে নিজেদের রোজগারের একটা জায়গা করতে পারে। কিন্তু জ্যোতিষশাস্ত্র কখনো ভুল বলে না।

Related Articles

Back to top button