×
জীবনযাপনসৌন্দর্য

Skin Care Tips: এই ৪টি জিনিস মুখের রুক্ষতা দূর করে মসৃণ ও চকচকে করবে

Advertisement

মুখে দাগ ছোপ থাকলে খুব বাজে লাগে দেখতে। গ্রীষ্মে ত্বকের যত্নের বিশেষ প্রয়োজন হয় কারণ সূর্যের উত্তাপের জন্যে ত্বকের প্রচুর ক্ষতি হয়ে যায়। ত্বকের যত্নের ক্ষেত্রে, ত্বক ফর্সা এবং দাগহীন করার দিকে সবার মনোযোগ নিবদ্ধ থাকে, কিন্তু আপনি কি ত্বকের গঠন নিয়ে ভাবেন, এই কথার জবাব কমই হ্যাঁ হয়। কারণ অধিকাংশ মানুষ এটা নিয়ে ভাবে না। ত্বকের গঠন বলতে আপনার ত্বকের পৃষ্ঠকে বোঝায়। সাধারণত এটি নরম হওয়া উচিত, তবে এটি খুব কম লোকের মধ্যে ঘটে।

Advertisement

অনেকেই প্রায়ই অভিযোগ করেন যে স্পর্শ করলে তাদের ত্বক রুক্ষ এবং শুষ্ক অনুভব হয়। এমনটি হওয়ার পেছনে অনেক কারণ রয়েছে। আসলে, বয়সের সাথে সাথে কোলাজেন কমতে শুরু করে এবং সূর্যের ক্ষতি বা মৃত কোষের স্তর জমে যাওয়ার কারণে ত্বক রুক্ষ ও প্রাণহীন দেখাতে শুরু করে। এমন অবস্থায় আপনার ত্বক স্পর্শ করলে তা রুক্ষ, তৈলাক্ত, শুষ্ক বা রুক্ষ দেখাবে। এর মানে হল যে আপনার ত্বকের গঠন উন্নত করতে হবে।

একই সঙ্গে সম্প্রতি ত্বকের গঠন উন্নত করার টিপস দিয়েছেন চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ আনিকা গোয়েল। আপনিও যদি এই সমস্যার মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন তাহলে এই দ্রুত টিপসটি আপনার জন্য খুবই উপকারী হতে পারে। আসুন আমরা আপনাকে বলি যে ত্বকের যত্নের রুটিনে ভাল উপাদানগুলি অন্তর্ভুক্ত করে ত্বকের গঠন উন্নত করা যেতে পারে।

Advertisement

১) রাসায়নিক এক্সফোলিয়েশন:-
রাসায়নিক এক্সফোলিয়েশনের আজকাল প্রচুর চাহিদা রয়েছে। ত্বকের গঠন উন্নত করার পাশাপাশি এটি আরও অনেক উপায়ে কাজ করে। অন্যদিকে, ত্বকের গঠন উন্নত করতে, আপনার ত্বকের ধরন এবং প্রয়োজন অনুসারে রাসায়নিক এক্সফোলিয়েশন বেছে নেওয়া উচিত। এটি মৃত ত্বকের কোষগুলিকে অপসারণ করতে সাহায্য করে এবং নতুন ত্বকের কোষগুলির উৎপাদনকে উৎসাহিত করে। নিস্তেজ মৃত স্তর সরানোর পরে ত্বককে মসৃণ এবং উজ্জ্বল দেখাতে দিন। স্যালিসিলিক অ্যাসিড এবং ল্যাকটিক অ্যাসিডযুক্ত এক্সফোলিয়েশন, গ্লাইকোলিক সপ্তাহে 2 বা 3 বার চেষ্টা করা যেতে পারে।

২) রেটিনয়েড:-
আপনি যদি চান, আপনি আপনার ত্বকের যত্নের রুটিনে রেটিনল অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। রেটিনল একটি দুর্দান্ত রেটিনয়েড যা ব্রণ প্রবণ ত্বক এবং অ্যান্টি-এজিংয়েও সহায়তা করে। এটি মসৃণ ত্বক পেতে সাহায্য করে। সপ্তাহে 2 থেকে 3 বার চেষ্টা করুন।

৩) ময়েশ্চারাইজার:-
ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করে রাখা খুবই জরুরি। বিশেষজ্ঞরা দিনে কয়েকবার ময়েশ্চারাইজার প্রয়োগ করার পরামর্শ দেন। যখন আপনার ত্বক হাইড্রেটেড এবং ময়শ্চারাইজড হয়, তখন এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে নরম এবং কোমল দেখাতে শুরু করে। এতে মুখের উজ্জ্বলতাও বাড়ে।

৪) সানস্ক্রিন:- সানস্ক্রিন ত্বকের জন্য ময়েশ্চারাইজারের মতোই গুরুত্বপূর্ণ। আজকাল বাজারে সানস্ক্রিনযুক্ত ময়েশ্চারাইজার পাওয়া যায়, যেগুলো ব্যবহার করে একই সঙ্গে দুটি কাজ করা হয়। অন্যদিকে আপনি যদি আপনার ত্বককে রক্ষা করতে চান তবে অবশ্যই সানস্ক্রিন লাগান। এটি সূর্যের ক্ষতি প্রতিরোধ করে এবং বার্ধক্যজনিত লক্ষণগুলি প্রতিরোধ করে। বলিরেখা রোধ করার পাশাপাশি এটি ত্বকের গঠনও উন্নত করে।

Related Articles

Back to top button