নিউজরাজ্য

ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ডে চার্জশিট ফাইল হলো দেবাঞ্জনের বিরুদ্ধে, কোন কোন ধারায় দায়ের হলো মামলা?

কলকাতা পুলিশের তরফ থেকে দু মাসের মধ্যে এই মামলার চার্জশিট ফাইল করা হয়েছে



এবারে ভুয়ো ভ্যাকসিন কান্ড নিয়ে চার্জশিট ফাইল করলো কলকাতা পুলিশ। খুনের চেষ্টা, প্রতারণা, এবং বিপর্যয় মোকাবিলা আইন নিয়ে ১৪টি থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে কলকাতা পুলিশের তরফ থেকে। কসবা ভ্যাকসিন কাণ্ডে কলকাতা পুলিশের বিশেষ তদন্তকারী দল বা সিট এই মামলায় চার্জশিট ফাইল করেছে। ইতিমধ্যেই, দেবাঞ্জন দেব এবং আরো ৭ জনের বিরুদ্ধে আলিপুর আদালতে চার্জশিট জমা পড়ে গেছে।

কলকাতা পুলিশ ইতিমধ্যেই ১৩১ জন এর বয়ান নিয়ে নিয়েছে এই সিট। কসবার একটি ক্যাম্প থেকে এই ভুয়ো ভ্যাকসিনেশনের কান্ড ঘটে ছিল যেখানে এই ভ্যাকসিন নিয়ে সমস্যার মধ্যে পড়ে ছিলেন তৃণমূল সাংসদ মিমি। শুধুমাত্র টিকা দেওয়া নয় দেবাঞ্জন নিজেকে আইএএস অফিসার বলে পরিচয় দিয়েছিল বলেও খবর। সব মিলিয়ে দেবাঞ্জন দেব কাণ্ডে রীতিমতো একাধিক মামলা দায়ের করা হয়েছে।

তদন্ত যত এগিয়েছে তত নতুন নতুন তথ্য জোগাড় হয়েছে এই মামলায়। শেষ পর্যন্ত এই ভ্যাকসিন কাণ্ডে বিশেষ তদন্তকারী দল বা সিট গঠন করে তদন্ত করে লালবাজার। মাত্র দু মাসের মধ্যে এই ঘটনার চার্জশিট ফাইল করে রেকর্ড সময়ে তদন্ত করল কলকাতা পুলিশ। ভ্যাকসিনকাণ্ডে সিবিআই তদন্ত দাবি করে জনস্বার্থ মামলা করা হয়েছিল কলকাতা হাইকোর্টে। কিন্তু তবুও, এই সমস্ত মামলা সম্পূর্ণরূপে খারিজ হয়ে যায়।

এইসব মামলা খারিজ করে আদালত পর্যবেক্ষণ করে, ‘এটা বিরল অপরাধ। দেবাঞ্জন কিভাবে এরকম ঘটনা ঘটিয়েছে তা অত্যন্ত আশ্চর্যের।’ দিল্লী পর্যন্ত এই মামলা নিয়ে জলঘোলা করা হয়েছিল। সিবিআই কিংবা অন্য কোন কেন্দ্রীয় সংস্থা দিয়ে তদন্ত করানোর আর্জি জানিয়ে বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী চিঠি লিখেছিলেন হর্ষবর্ধনকে। হর্ষবর্ধন সেই সময় ছিলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী। বিরোধী দলনেতার চিঠির প্রেক্ষিতে রাজ্য সরকারের কাছে তাগাদা দেওয়া হয় এই তদন্ত আরো তাড়াতাড়ি করার জন্য। তারপরেই রাজ্য সরকার এই সিট গঠন করে দু’মাসের মধ্যে এই মামলার চার্জশিট ফাইল করে রেকর্ড করলো কলকাতা পুলিশ।

Related Articles

Back to top button