দেশনিউজ

‘অন ডিমান্ড’ করোনা পরীক্ষায় জোর দিল স্বাস্থ্যমন্ত্রক

নয়াদিল্লি: দিন দিন বাড়ছে করোনা সংক্রমনের সংখ্যা। রোজ নতুন করে রেকর্ড করছে ভারত। মৃত্যুর হার নেহাত কম নয়। এমন সময় করোনা পরীক্ষা করা নিয়ে নয়া নির্দেশিকা জারি করল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। সেই নির্দেশিকায় চাহিদা অনুযায়ী করোনা টেস্টিংয়ের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে।

জাতীয় টাস্ক ফোর্সের নির্দেশ অনুযায়ী করোনা পরীক্ষা পদ্ধতিকে আরও সহজ করা হয়েছে। রিপোর্টে বলা হয়েছে দৈনিক প্রায় ১২ লক্ষ করে টেস্টিং হচ্ছে। সারা দেশে দিন-রাত পরিশ্রম করে চলেছে ১৬৪৭টি ল্যাবরেটরী। আর এবার সেই টেস্টিং পদ্ধতিকে আরও সহজ করার কথা ভেবেছে কেন্দ্র।

এক নজরে দেখি নিন এবার নয়া নির্দেশিকা কী বলা হয়েছে।…

● কনটেইনমেন্ট জোনের বাইরে রুটিনমাফিক নজরদারি করতে হবে। ঢোকার সময় স্ক্রিনিং করতে হবে। rapid antigen টেস্ট করা বাধ্যতামূলক। RT-PCR পদ্ধতিতে অথবা ট্রুন্যাক কিংবা CBNAATপদ্ধতিতে টেস্টিং করা হবে।

● সমস্ত স্বাস্থ্যকর্মী এবং করোনা যুদ্ধে যারা প্রথম সারির যোদ্ধা তাদের সকলের টেস্ট করতে হবে।

● কনটেইনমেন্ট জোনের বাইরে যারা আছেন, তাদের মধ্যে কেউ যদি বিদেশ থেকে আসেন এবং ১৪ দিনের মধ্যে তাদের যদি কোনওরকম উপসর্গ দেখা দেয়, তাহলে তাদের টেস্ট করতে হবে।

● কেউ যদি বিদেশ ফেরত বা পরিযায়ী কারোর সংস্পর্শে এসে থাকে এবং তার ফলে অসুস্থ হয়ে পড়ে তাহলে সাত দিনের মধ্যে টেস্ট করাতে হবে।

● ৬৫ বছর কিংবা তার বেশি কেউ যদি কোনও উপসর্গহীন করোনা ব্যক্তির সংস্পর্শে আসে, তাহলে RAT পদ্ধতির মাধ্যমে টেস্ট করা ভাল।

● হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শ্বাসকষ্ট হচ্ছে এমন রোগীর আগে টেস্ট করতে হবে। এক্ষেত্রে RT-PCR এবং RAT পদ্ধতিতে এই টেস্ট হবে।

● উপসর্গ নেই কিন্তু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কোনও রোগীর ক্যান্সার হয়েছে বা অঙ্গ প্রতিস্থাপন হয়েছে বা তাদের মধ্যে যদি কারোর ৬৫ বছরের উর্ধ্বে বয়স, তাদের টেস্ট করা বাধ্যতামূলক।

● সমস্ত গর্ভবতী মহিলা যাদের প্রসবের সময় হয়ে এসেছে বা প্রসব করার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে তাদের করোনা টেস্ট করা বাধ্যতামূলক।

● সদ্যোজাতদের মধ্যে যদি কোনও উপসর্গ থাকে তাহলে অতি দ্রুততার সঙ্গে তাদের টেস্ট করতে হবে।

সব মিলিয়ে এই নির্দেশিকার সারমর্ম এটাই যে জনসাধারণের চাহিদা অনুযায়ী করোনা পরীক্ষা করতে হবে।

Tags

Related Articles

Back to top button