বিনোদনবলিউড

Pushpa The Rule: ‘ফুল লয় বে কেলা আগুন বটি’, বাঁকুড়ার ভাষাতেই বলতে হবে পুষ্পার ডায়লগ, দাবি গোটা বাঁকুড়াবাসীর

×
Advertisement

আসন্ন দক্ষিণী ছবি ‘পুষ্পা দ্যা রুল’ নিয়ে উন্মাদনার শেষ নেই দর্শকমহলের। ইতিমধ্যেই পরিচালক সুকুমার ছবি শুরুর আগের পুজো সেরে ফেলেছেন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন রশ্মিকা মন্দনা , আল্লু অর্জুনের পাশাপাশি ফাহাদ ফাসিলের মতো দক্ষিণী তারকারাও। খবর মিলেছে, সেপ্টেম্বর থেকেই শুরু হতে পারে ‘পুষ্পা দ্যা রুল’এর শুটিং। আসন্ন এই ছবির শুটিং বাঁকুড়ার খাতরা অঞ্চলে হতে পারে বলেই জানা যাচ্ছে। আর এ খবর জানার পর থেকেই উচ্ছ্বসিত হয়ে পড়েছেন গোটা বাঁকুড়াবাসী।

Advertisement

এই মুহূর্তে নেটপাড়াও উত্তাল হয়ে উঠেছে বাঁকুড়ায় পুষ্পার সিকুয়েন্সের শুটিংয়ের কথা শুনে। এক বাঁকুড়াবাসী তো আবদার করেই বসেছেন যেন অভিনেতা আল্লু অর্জুন তার সেই বিখ্যাত সংলাপ “পুষ্পা নাম শুনকে ফ্লাওয়ার সমঝে কেয়া? ফ্লাওয়ার নেহি ফায়ার হ্যায়” যাতে বাঁকুড়ার ভাষাতে বলে শোনান, যা নিয়ে ইতিমধ্যেই ট্রোল শুরু হয়ে গিয়েছে। সম্প্রতি এই প্রসঙ্গে কথাও বলা হয়েছিল বাঁকুড়া মিমসের উন্মেশ গাঙ্গুলীর সাথে।

এই প্রসঙ্গে সকলের প্রিয় ঘোতন বলেছেন, ছবির অভিনেতা যদি বাঁকুড়ার ভাষায় কথা বলেন তাহলে মন্দ হবে না। যদি অভিনেতা বাঁকুড়ার ভাষায় কথা বলেন তাহলে বাঁকুড়ার ভাষা জাতীয় স্তরে পৌঁছবে, যা সত্যিই আনন্দের ব্যাপার হবে। তবে তিনি একথাও বলেছেন যে, তবে বাঁকুড়ায় শুটিং হলেও বাঁকুড়াকে বাঁকুড়া হিসেবেই দেখানো হবে কিনা! সে নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে তার, যা নিতান্তই অযৌক্তিক নয়। যদি কোন কাল্পনিক জায়গা হিসেবে বাঁকুড়াকে দেখানো হয় তাহলে বাঁকুড়ার ভাষা মটেই ব্যবহার করা সম্ভব নয় ছবিতে, তা স্পষ্ট।

Advertisement

‘পুষ্পা দ্যা রাইজ’এর শুটিং হয়েছিল অন্ধপ্রদেশের মারেডুমিল্লির গভীর অরণ্যের মধ্যে। সেখানে শুটিংয়ের জন্য আলাদাভাবে রাস্তা তৈরি করে নেওয়া হয়েছিল। এবারে বাঁকুড়াতে শুটিং হলে সেই পথই অবলম্বন করতে পারেন পরিচালক। কারণ বাঁকুড়ার খাতরায় গহন অরণ্যের পাশাপাশি রয়েছে ঝরনাও। সেই জায়গাকে ছবির উপযুক্ত করে তোলার জন্য নিজের মতো করে সাজিয়ে নিতে পারেন ছবির কর্মকর্তারা। এমনকি ছবির গানের শুটিংও বাঁকুড়ায় হতে পারে বলে জানা গিয়েছে। তবে এখনো পর্যন্ত এই প্রসঙ্গে কোন মজবুত তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে বাঁকুড়ায় এই বিগ বাজেটের ছবির শুটিং হওয়ার কথা শুনে আপাতত উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েছেন বাঁকুড়াবাসীর পাশাপাশি গোটা বঙ্গের মানুষ। তবে শেষপর্যন্ত কি হয় সেটাই দেখার! অপেক্ষায় বঙ্গবাসী।

Related Articles

Back to top button