×
অফবিট

ব্যাকটেরিয়া যা প্লাস্টিকের দ্রব্যকে নষ্ট করতে পারে, চাঞ্চল্যকর তথ্য দিল বিজ্ঞানীরা

Advertisement

শ্রেয়া চ্যাটার্জি – প্লাস্টিক মুক্ত পৃথিবী আমাদের চাই। কারন একটা সময় উন্নতির শিখরে উঠবো বলে আমরা প্লাস্টিক কে বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করেছিলাম। কিন্তু প্লাস্টিক আমাদের বন্ধু নয়, তা সে কাজেই বুঝিয়ে দিয়েছে। কারণ প্লাস্টিক পরিবেশবান্ধব না, সহজে মাটির সঙ্গে মিশে না, পরিবেশে খাপ খাইয়ে নেয় না। যার ফলে পরিবেশ ক্রমশ দূষিত হয়ে পড়ছে। আমাদের সুবিধার্থে আমরা প্লাস্টিক কে এতোটাই আপন করে নিয়েছি যে, একদিনে প্লাস্টিক মুক্ত পৃথিবী পাওয়া খুব অসম্ভব। তাই একটু একটু করে আমাদেরই দৈনন্দিন জীবন থেকে প্লাস্টিক কে বাদ দিতে হবে। প্রত্যেকে যদি আমরা একটু একটু করে চেষ্টা করি তবেই হয়তো পৃথিবী একদিন প্লাস্টিক মুক্ত পৃথিবী তৈরি হবে।

Advertisement

তবে ইউরোপের কিছু বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেছেন কিছু ব্যাকটেরিয়া যারা প্লাস্টিককে খুব ভালোবাসে। কয়েকজন মাইক্রোবায়োলজিস্ট বলেছেন, কিছু ব্যাকটেরিয়ার ক্ষমতা আছে এই প্লাস্টিক থেকে ভেঙে দেওয়ার। এই ব্যাকটেরিয়া কে দেখা গেছে সাধারণত যে সমস্ত জায়গায় ডাইপার, জুতো, ফ্রিজের নানান রকম অংশ, বিশেষত যেগুলো হালকা ধরনের প্লাস্টিক সেই সমস্ত জায়গায়।

অনেকেই প্লাস্টিকের পুনর্ব্যবহার এ নানান রকম পদ্ধতি বলছেন, কিন্তু আসলে তো সেই প্লাস্টিকটি পরিবেশবান্ধব নয়। তাই এই প্লাস্টিক কে যদি সমূলে বিনাশ করতে হয়, তার জন্যই ব্যাকটেরিয়ার প্রয়োজন ভীষণ। একজন বিজ্ঞানী হারমান হেইপেইপার জানান যে, এই ব্যাকটেরিয়া টি এই ধরনের প্লাস্টিকের ঢিবির মধ্যে কার্বন, নাইট্রোজেন এবং শক্তির উৎস হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

Advertisement

সবমিলিয়ে এটি সত্যি আনন্দের খবর, পৃথিবী যদি সত্যিই প্লাস্টিক মুক্ত হয়, তো পৃথিবী আবার আগের মতন হয়ে যাবে। কারণ এই প্লাস্টিকের জন্য শুধুমাত্র স্থলভাগের না সমুদ্র এবং সমুদ্রের মধ্যে থাকা প্রাণীগুলো যথেষ্ট সংকটে রয়েছে, সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে আমরা প্রায়শই দেখতে পাই এমন কিছু ভয়ংকর ছবি, যা দেখে আমাদের নিজেদেরই নিজেদেরকে দোষ দিতে ইচ্ছা করে।

মনে হয় এসব কিছুর জন্য আমরাই দায়ী। তাই আমরা ছোট ছোট পদক্ষেপ এ প্লাস্টিক কে নিজের জীবন থেকে বর্জন করতে পারি। প্লাস্টিকের চেয়ার, টেবিলের বদলে কাঠের চেয়ার টেবিল অথবা সামর্থ্য না থাকলে মাটিতে মাদুর পাতা, ঠিক যেমনটা আগে হতো, প্লাস্টিকের বোতলের জায়গায় বাঁশের বোতল, বাড়িতে ফিরিয়ে আনতে পারেন সেই পুরনো মাটির কুঁজো বা জালা, প্লাস্টিকের ব্যাগ এর জায়গায় ব্যবহার করতেই পারেন কাপড়ের ব্যাগ, এই সবকিছু ব্যবহারে হয়তো ফ্যাশনের চাকচিক্য থাকবে না, কিন্তু থাকবে অনেকটা শান্তি, অনেকটা সুস্থতা। প্রত্যেকটা মানুষ যদি এমন করে চেষ্টা করে, তাহলেই সম্ভব পৃথিবীকে প্লাস্টিক মুক্ত করা।

Related Articles

Back to top button