বলিউডবিনোদন

Drug Case: মাদক কাণ্ডে আরিয়ানের গ্রেপ্তারির পরেই শাহরুখের বিজ্ঞাপন বন্ধ করল অনলাইন শিক্ষা সংস্থা

ক্রুজ পার্টি মাদক মামলায় গ্রেফতার হয়েছে শাহরুখ পুত্র আরিয়ান খান। দু’দফায় এনসিবি হেফাজতের পর গত বৃহস্পতিবার আরিয়ানকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। এদিকে হাজার চেষ্টা করেও শুক্রবার সকাল থেকে দীর্ঘ শুনানির পরও মাদক মামলায় আরিয়ান খানের জামিনের আবেদন কোনো মঞ্জুর হয়নি। বরং এই জামিন খারিজ করে দেয় মুম্বইয়ের আদালত।এর কারণে বাদশার পুত্রের ঠিকানা আর্থার রোড কারারুদ্ধ।

ছেলের গ্রেফতারির পর শাহরুখ এখন খুবই ভেঙে পড়েছে। এর মাঝেই পেশাগত দিকে বড় ধাক্কার সম্মুখীন অভিনেতা। এবার তাঁর সঙ্গে সম্পর্ক বিচ্ছেদ করল বাইজুস অনলাইন শিক্ষাদানের এই নামী সংস্থা। এই সংস্থার বিজ্ঞাপনের ব্যান্ড অ্যাম্বাসেডর পদ থেকে শাহরুখ খানকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। শাহরুখকে দিয়ে করানো সব বিজ্ঞাপন বন্ধ করে দিল তাঁরা। সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম ‘ইকনমিক টাইমস-এ প্রকাশিত রিপোর্টে এমনটাই দাবি করা হয়।

২০১৭ সালে ছোটদের শিক্ষা, প্রযুক্তি সংক্রান্ত অ্যাপ বাইজুসের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হয়েছিল্রন শাহরুখ। কিং খান এই সংস্থার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হওয়ার পরই নাকি এই সংস্থার আয় দ্বিগুন বেড়ে গিয়েছিল। বিজ্ঞাপনে ছোটদের ভবিষ্যৎ এবং শিক্ষা, প্রযুক্তি সংক্রান্ত বিষয়ে শাহরুখকে পরামর্শ দিতে শোনা যায়। বিশেষ করে করোনা কালে অনলাইন পড়াশোনা শুরু হতে। সম্প্রতি আরিয়ান খানের গ্রেফতারির পরই কিং খানের সেই পরামর্শ শুনতে নারাজ বাইজুসের সাথে জড়িত বহু গ্রাহক।নেটমাধ্যমে অভিনেতার এই বিজ্ঞাপন দেখে কটাক্ষ করেন নেটিজেনের একাংশ। কারও দাবি, অভিনেতার নিজের ছেলে যেখানে ‘উচ্ছন্নে’ গিয়েছে, তখন তাঁর মুখে শিশুদের শিক্ষা নিয়ে পরামর্শ মানায় না। কেউ কেউ আবার তাঁকে বিজ্ঞাপন থেকে সরিয়ে নেওয়ার দাবিও তোলেন।

সর্বভারতীয় সংবাদ-মাধ্যমের প্রতিবেদন অনুসারে, টুইটার সহ বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে লাগাতার আক্রমণের মুখে পড়তে হয়েছে বাইজুসকে। তাই এই সংস্থার তরফে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তাই বিজ্ঞাপনের জন্য অগ্রীম বুকিং থাকা সত্ত্বেও সংস্থার তরফ থেকে শাহরুখের সমস্ত বিজ্ঞাপন তুলে নেওয়া হয়েছে। বাইজুস থেকে সত্যি সত্যি অভিনেতাকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে কিনা, তা নিয়ে এখনো পরিষ্কার করে কিছু জানানো হয়নি। জানা যাচ্ছে এই সংস্থার সঙ্গে শাহরুখের ৩-৪ কোটি টাকার একটি বার্ষিক চুক্তি ছিল। শুধু বাইজুস নয় মেগাস্টার হুন্ডাই, এলজি, দুবাই ট্যুরিজম এবং রিলায়েন্স জিও -এর মতো বেশ কয়েকটি সংস্থার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হলেন কিং খান। 

Related Articles

Back to top button