ক্রিকেটবলিউডবিনোদনভাইরাল & ভিডিও

Virat Kohli Birthday: স্বামী বিরাট কোহলির ৩৩ তম জন্মদিনে সোশ্যাল মিডিয়ায় আবেগঘন পোস্ট স্ত্রী অনুষ্কার

বিরুষ্কা! এদের প্রেমকাহিনী রুপকথার গল্পকেও হার মানাবে। বিরাট আর অনুষ্কা দুজনে নিজেদের কেরিয়ার তৈরীর পথে এক শ্যাম্পুর বিজ্ঞাপনের শ্যুট করতে গিয়ে প্রথম আলাপ। তারপর বন্ধু থেকে প্রেমিক প্রেমিকা হন। এরপর পাঁচ বছর পরে চুটিয়ে প্রেম করার পর ২০১৭ সালে নভেম্বর মাসে ইতালিতে পরিবার আর আর কয়েকজন ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের উপস্থিতিতে সাত পাকে বাঁধা পডেন। বিয়ের সাড়ে তিন বছরেও এদের প্রেম করেনি বরং দিন যত যাচ্ছে ততই বেড়ে যাচ্ছে। এখনো কাজের ফাঁকে নতুন প্রেমিক প্রেমিকার মতো রোম্যান্স করতে ভোলেনা৷

বিরুষ্কার কাপল গোল দেখার জন্য গোটা বিটাউন অপেক্ষা করে থাকে। বিয়ের ৩ বছরের মধ্যে এক ফুটফুটে কন্যা সন্তানের জন্ম দিয়েছেন অভিনেত্রী৷ কাজের পাশাপাশি এখন মেয়েকে একসাথে মানুষ করছেন এই লাভ বার্ডস। মেয়েকে ভালোবেসে নাম দিয়েছেন ভামিকা। এখনো ভামিকাকে দেখাননি অভিনেত্রী৷ অন্যান স্টারকিডদের থেকে নিজের কন্যাকে একটু আলাদা করে মানুষ করতে চান অভিনেত্রী৷ আসল ব্যপার হল দুইজনেই নিজ নিজ ক্ষেত্রে সফল, অথচ সেই সাফল্যের চাকচিক্য কোনওদিন অন্তরাল হয়ে দাঁড়ায়নি তাঁদের প্রেমকাহিনিতে।

আজ অনুষ্কার হাবি বিরাট কোহলি ৩৩-শে পা দিলেন। আর বিরাটের জন্মদিনে মনের কথা বললেন অনুষ্কা। স্বামীর জন্য সোশ্যাল মিডিয়ায় আবেগী ভামিকার মা। এদিন ইনস্টাগ্রামে বিরাটকে জাপটে ধরা একটি আদুরে ছবি পোস্ট করলেন তিনি। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, হলুদ সালোয়ারে হাসিমুখে অনুষ্কা, বিরাটের পরনে সাদা রঙা চিকনকারি কাজের পাঞ্জাবি। এদিন স্ত্রীকে জড়িয়ে ধরে বার্থ ডে বয়ও হাসছেন খিলখিল করে, সেই অনাবিল হাসিই যে কাউকে মুগ্ধ করবে। খুব সম্ভবত দুবাইয়ে এই জুটির দিওয়ালি সেলিব্রেশনের ফাঁকে তোলা ছবি।

এদিন স্বামীর জন্মদিনে অনুষ্কা দীর্ঘ একটি পোস্টে
স্বামীকে উদ্দেশ্য করে অভিনেত্রী লিখেছেন, ‘এই ছবিটার জন্য ফিল্টারের দরকার নেই, ঠিক যেমন তোমার জীবনযাপনের ধরনে কোনও বাহ্যিক ভনিতা নেই। তুমি অন্তর থেকে সৎ এবং ইস্পাতের মতো সাহস। এমন সাহস যা সন্দেহকে এক নিমেষে ফিকে করে দেয়। তোমার মতো অন্ধকার থেকে নিজেকে টেনে বের করতে পারে এমন আর কাউকে আমি চিনি না। তুমি নির্ভীক, সেই কারণেই সবদিক থেকে তুমি উন্নতি করো প্রতিদিন কারণ কোনও জিনসটা চিরস্থায়ী এটা তুমি বিশ্বাস করো না। আমি জানি আমরা সোশ্যাল মিডিয়ায় একে অন্যের সঙ্গে কথা বলার লোক নই, কিন্তু কখনও কখনও আমার ইচ্ছে করে চিৎকার করে গোটা পৃথিবীকে বলি যে তুমি কতটা দুর্দান্ত একজন মানুষ। তাঁরা সৌভাগ্যবান যাঁর তোমাকে কাছ থেকে চেনে। ধন্যবাদ আমার প্রতিটা দিনকে আরও উজ্জ্বল আরও সুন্দর করে তোলবার জন্য। আর হ্যাঁ, শুভ জন্মদিন কিউটনেস!!’ এরপর অনুগামীরা ভালোবাসা জানিয়েছেন। নিমেষে ভাইরাল হয় এই পোস্ট।

Related Articles

Back to top button