কলকাতাটলিউডবিনোদন

৬৬ পল্লীর দুর্গাপুজোর খুঁটিপুজোতে নন্দিনী ভৌমিকের সাথে ঋতাভরী চক্রবর্তী



২০২০ সালে পরিচালক অরিত্র মুখোপাধ্যায়  মহিলা পুরোহিত নন্দিনী ভৌমিকের জীবন থেকেই অনুপ্রাণিত হয়ে অরিত্র ‘ব্রহ্মা জানেন গোপন কম্মটি’ সিনেমাটি পরিচালনা করেছিলেন। এই ছবিতে পরিচালক মশাই যেভাবে পুরুষতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে কার্যত চ্যালেঞ্জ জানিয়ে পুরোহিত হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন ‘শবরী’, এবার বাস্তবে তা সত্যি হতে চলেছে। হ্যাঁ এবার নারীদের হাতেই হবে মা উমার পুজো। নন্দিনী ভৌমিকের জীবন সংগ্রাম নিয়ে অনুপ্রেরণায় এই সিনেমার গল্প হয়।

এবার সিনেমাকে বাস্তবায়িত করছে কলকাতার ৬৬ পল্লী দুর্গোৎসব। হ্যাঁ কলকাতা শহরে আশ্বিন প্রভাতে উমার আরাধনা করবেন চার মহিলা পুরোহিত।সেই নন্দিনীই আরও একবার প্রথা ভাঙতে চলেছেন।আসন্ন দুর্গাপুজোয় ।দক্ষিণ কলকাতার জনপ্রিয় ক্লাব ‘৬৬ পল্লীতে- তে পৌরোহিত্য করবেন নন্দিনী এবং তাঁর তিন সঙ্গী। কলকাতার দুর্গাপুজোর ইতিহাসে এই প্রথমবার কোনো বারোয়ারি পুজোর দায়িত্ব পেলেন চার মহিলা পুরোহিত। চার শ্রীমতী নন্দিনী, রুমা, সেমন্তী এবং পৌলমীর মন্ত্রোচ্চারণেই মুখরিত হবে আশ্বিনের শারদপ্রাত। এই চারজন মহিলা ভারতীয় শাস্ত্রের উপর দারুণ দক্ষতা আছে, শাস্ত্রের জ্ঞান ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপিকা।

দক্ষিণ কলকাতার জনপ্রিয় এই বারোয়ারি পুজো প্রতিবারই নতুন নতুন থিম উপহার দেয়। তবে এবারের থিমের থেকে পুজো কমিটির এই উদ্যোগ সকলের নজরকাড়া লেগেছে৷ উমা পুজোর গোড়া থেকেই থাকবে মহিলা পুরোহিতের উপস্থিতি। আজ রাখিপূর্ণিমা তিথিতে ২২ শে আগস্ট ৬৬ পল্লির খুঁটিপুজো। এই দিন খুঁটিপুজোয় উপস্থিত ছিলেন স্বয়ং পর্দার শবরী ওরফে ঋতাভরী চক্রবর্তী। আর আজকের দিনের এই সুন্দর মুহূর্ত লেন্সবন্দী করলেন অভিনেত্রী। বাস্তবের নায়িকার সাথে পর্দার নায়িকা ছবি তুললেন।

আর ক্যপশানে লিখলেন, “এই প্রথম দুর্গাপুজোয় মহিলা পুরোহিত, l ‘অ্যাওয়ার্ডের থেকেও বড় পাওনা,” ৬৬ পল্লি – পুজোয় পৌরহিত্যের ভার ৪ মহিলার উপর। এই ছবি শেয়ারের সাথে অনুগামীরা ভালোবাসা আর প্রশংসা করলেন। পুজোর অন্যতম উদ্যোক্তা প্রদ্যুম্ন মুখোপাধ্যায় এক সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন, মহামারীর কারণে এবারে পুজোর বাজেটে প্রচুর কাটছাট হয়েছে। এইবছর সেভাবে থিম না হলেও দেবীপক্ষে নারীদের এই অনন্য সম্মানই অন্যান পুজোর থেকে মূল আকর্ষণ হতে চলেছে ৬৬ পল্লির। পুজো মন্ডপে মহিলা পুরোহিতের উত্থানের ইতিহাস রচিত হতে চলেছে। আর যা বাংলার পূজা ইতিহাসে স্মরণীয় থাকবে।

Related Articles

Back to top button