জীবনযাপনসৌন্দর্য

Skin Care Tips: এই ঘরোয়া উপায়গুলো কমাবে মুখের দাগ, মুখ হবে উজ্জ্বল ২ দিনে

×
Advertisement

নিখুঁত মুখ দেখতে যেমন ভালো লাগে তেমনি খুব কষ্ট করে পেতে হয়। প্রত্যেক নারীই এমন ত্বক চায় যাতে কোনো ধরনের দাগ ও ছোপ না থাকে। কিন্তু আমাদের ভুল জীবনযাপন, শরীরে প্রয়োজনীয় পুষ্টির অভাব এবং সূর্যের ক্ষতিকর UVA এবং UVB রশ্মির সংস্পর্শে আমাদের ত্বকে নানা সমস্যার সৃষ্টি করে।

Advertisement

মুখের পিগমেন্টেশন বা ফ্রেকলসও এই কারণগুলির ফল, যা মুখকে নোংরা এবং কুৎসিত করে তোলে। সৌন্দর্য ও মেকআপ বিশেষজ্ঞ নিকিতা শর্মা বলেন, “মেলানিনের উৎপাদন বেশি হলে ত্বকে পিগমেন্টেশন বা ফ্রেকলস বেশি হয়। মেলানিন হল যা চোখ, ত্বক এবং চুলকে তাদের রঙ দেয় এবং এটি ত্বককে সূর্যের রশ্মির ক্ষতি থেকে রক্ষা করে।

এর ঘাটতির কারণে চোখের রং পরিবর্তন হতে পারে, চুলের রং সোনালি হয়ে যায় এবং ত্বকের রং সাদা হয়ে যায়। একই সময়ে, এর আধিক্যের কারণে, ত্বকে আরও পিগমেন্টেশন বা ফ্রেকলস হয় এবং এর সাথে এই পিগমেন্টেশন হাত-পা এবং সমস্ত শরীরে ঘটতে থাকে। এটি আমাদের সমস্যার কারণ হতে পারে।

Advertisement

নিকিতা বলেন, ‘মেকআপের মাধ্যমে মুখের দাগ দূর করা যায়, কিন্তু আপনি সবসময় মেকআপ নিয়ে বসতে পারবেন না। এমন পরিস্থিতিতে আপনি বাড়িতে কিছু ফেসপ্যাক তৈরি করে এই ফ্রেকলে লাগাতে পারেন। আলু, শসার রস, লাল পেঁয়াজের রস, লাল মসুর ডালের পেস্ট ইত্যাদি লাগাতে পারেন। এটি আপনার ত্বককে উন্নত করবে এবং ফ্রেকলস যা আগে খুব দৃশ্যমান ছিল, তাও কম দৃশ্যমান হবে।

আপনি যদি ফ্রেকলস কমাতে দামী ক্রিম ব্যবহার করেন, তাহলে এখনই ছেড়ে দিন এবং বিশেষজ্ঞদের দেওয়া এই টিপসটি ব্যবহার করে দেখুন।

১) মুসুর ডালের প্যাক:- প্যাকটি সবচেয়ে কার্যকর ত্বকের পিগমেন্টেশন প্রতিকারগুলির মধ্যে একটি, কারণ লাল মসুর ডালে উচ্চ প্রোটিন উপাদান রয়েছে যা ত্বকের মৃত কোষগুলিকে ঝেড়ে ফেলতে সাহায্য করে। লাল মসুর ডাল শুধুমাত্র একটি ভাল প্রাকৃতিক ক্লিনজার নয়, এটি একটি ভাল ব্লিচিং এজেন্ট এবং ত্বকের দাগ, রঙ্গক এবং কালো দাগ হালকা করতে সাহায্য করে।
উপকরণের সামগ্রী:-

*)লাল মসুর ডাল- ১ টেবিল চামচ (দুধে সারারাত ভিজিয়ে রাখা)
*)মধু – 1 চা চামচ
*)দই- ১ চা চামচ
*) লেবুর রস – 1 চা চামচ
*)দুধ – 3 চামচ
তৈরির পদ্ধতি-
দুধে ভেজানো মসুর ডাল পিষে নিন। এরপর একটি পাত্রে নিয়ে মধু, দই, লেবুর রস, কাঁচা দুধ মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এবার মুখ পরিষ্কার করে এই পেস্টটি মুখে ও ঘাড়ে লাগিয়ে ১৫ মিনিট রেখে দিন। ১৫ মিনিট পর হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। আপনি সপ্তাহে দুইবার এই প্রতিকার প্রয়োগ করতে পারেন।

২) টমেটো, ওটমিল এবং দই দিয়ে একটি প্যাক তৈরি করুন:-
টমেটোতে অ্যান্টি-এজিং বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা বার্ধক্যজনিত লক্ষণগুলির সাথে লড়াই করতে সাহায্য করে যেমন ফাইন লাইন, বলি, দাগ, ডার্ক সার্কেল, পিগমেন্টেশন ইত্যাদি। টমেটো স্কিন লাইটেনার হিসেবেও কাজ করে, যা মুখে তাৎক্ষণিক উজ্জ্বলতা এনে দেয়। দইয়ে উপস্থিত ল্যাকটিক অ্যাসিড ত্বকের ছিদ্র শক্ত করতে এবং দাগ কমাতে সাহায্য করে। ওটস ত্বকের মৃত কোষ দূর করতে এবং ত্বকের স্বাস্থ্যকর স্তর প্রকাশ করতে কার্যকরী এক্সফোলিয়েটর হিসেবে কাজ করে।

প্রয়োজনীয় সামগ্রী-
*)দই- ১/২ চা চামচ
*)ওটস – 2 চা চামচ
*)টমেটো – 1 টমেটোর রস

তৈরির পদ্ধতি-
সব উপকরণ একসঙ্গে মিশিয়ে একটি মোটা মিশ্রণ তৈরি করুন। এখন যেখানেই পিগমেন্টেশন অনুভব করবেন, সেখানে এই পেস্টটি লাগিয়ে ২০ মিনিট রেখে দিন। 20 মিনিট পর, হালকাভাবে মুখ স্ক্রাব করুন এবং তারপরে হালকা গরম জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। ভালো ফলাফলের জন্য সপ্তাহে ৩ দিন এই প্যাকটি লাগাতে পারেন।

৩) শিয়া মাখন, মধু এবং আঙ্গুর বীজ তেল দিয়ে একটি প্যাক তৈরি করুন:-
শিয়া বাটারকে ত্বকের সুপারফুড বললে ভুল হবে না। শিয়া মাখন ত্বকের বিবর্ণতা এবং ত্বকের টোন সংশোধনের জন্য দুর্দান্ত। শিয়া বাটারে উপস্থিত ভিটামিন-ই আপনার ত্বককে মুক্ত র‌্যাডিক্যাল থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে আপনার ত্বককে নিস্তেজ দেখাতে বাধা দেয়। এটি ত্বক থেকে ব্রণের দাগ ও দাগ দূর করতে সাহায্য করে।
প্রয়োজনীয় সামগ্রী:-
*)কাঁচা মধু – 1 চা চামচ
*)শিয়া মাখন – 1 টেবিল চামচ
*)আঙ্গুর বীজ তেল – 4-5 ফোঁটা

তৈরির পদ্ধতি:-
একটি পাত্রে এই তিনটি উপাদান ভালো করে মিশিয়ে নিন। এবার আপনার মুখ পরিষ্কার করুন এবং এই প্যাকটি আপনার মুখ ও ঘাড়ে লাগিয়ে ২০ মিনিট রাখুন। তারপরে আপনার মুখ পরিষ্কার করার সময় হালকা গরম জল দিয়ে আপনার মুখ ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুইবার এই প্যাক লাগাতে পারেন।এখন আপনিও এই রেসিপিটি ব্যবহার করে দেখতে পারেন এবং আপনার চুলকানি কমাতে পারেন। এতে আপনার মুখও সোনার মতো উজ্জ্বল হবে এবং চুলের দাগও কমে যাবে।

Related Articles

Back to top button