টলিউডবিনোদন

Nusrat-Nikhil: ‘নুসরতকে আজও ভালোবাসি’, বিচ্ছেদের মামলা মিটতেই অকপট নিখিল

আড়াই বছর আগে একে অপরকে ভালোবেসে একসঙ্গে থাকবার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন নিখিল জৈন আর নুসরত জাহান। দুই ধর্মের বেড়াজাল, সমাজের কটুক্তি কোনো কিছুকে গুরুত্ব না দিয়ে সূদূর তুরস্কের বোদরুমে অভিনেত্রী এবং সদ্য নির্বাচিত সাংসদ নুসরত জাহান রুহি বিয়ে করেন ব্যবসায়ী নিখিল জৈন। এই জুটির বিয়ে ছিল রূপকথার গল্পের মতো। এই তারকার বিয়ে দু-চোখ মেলে দেখেছিল গোটা দেশ। বিয়ের দিন লাল লেহেঙ্গায় সুন্দরী নুসরত আর সাদা শেরওয়ানিতে নিখিল ঝলমলে নিখিল তুরস্কের এজিয়ান সাগরের ধারের বিলাসবহুল রিসর্টে মালাবদল সেরে, সাত পাক ঘুরে সিদুঁর দান পর্ব সেরে বিয়ে সেরেছিলেন। বিয়ের তারিখটা ২০১৯ সালের ১৯শে জুন।

কিন্তু বিয়ের প্রায় দেড় বছর পর জানা গেল বৈধ ছিল না সেই বিয়ে। কিছুমাস একসঙ্গে সংসার করার পর আলাদা থাকার সিদ্ধান্ত নেন দুজনে। অভিনেত্রীর অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার খবর প্রকাশ্যে আসতে নিখিল ‘অ্যানালমেন্ট অফ ম্যারেজ’ দায়ের করেন। ব্যবসায়ীর করা এই মামলায় গত ১৭ই নভেম্বর রায় দেয় আলিপুর আদালত। সেখানে আদালতের তরফে জানানো হয়, ‘বৈধ ছিলনা নুসরত-নিখিলের বিয়ে’। চলতি বছরের শুরু থেকেই নুসরত-নিখিলের দাম্পত্য নিয়ে নানান টানাপোড়েন শুরু হয়েছিল আর সেই বিতর্ক কিছুটা হলেও সমাপ্ত হয়েছে এই রায়ের পর।  

বিচ্ছেদের পর প্রথমবার নুসরতের সঙ্গে নিজের সম্পর্ক নিয়ে মুখ খুলেছেন প্রাক্তন লিভ ইন পার্টনার নিখিল। এক সংবাদপত্রকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে নুসরতের প্রাক্তন জানান, ‘আমার ও নুসরতের সম্পর্ক নেই ঠিকই কিন্তু, নুসরতকে আমি এখনও ভালোবাসি।’ তবে নিখিল এদিন স্পষ্ট কর বলেন যে নুসরতকে তিনি ভালোবেসেছিলেন সেই নুসরত আজও তাঁর মনে। কিন্তু এখনকার নুসরতকে তিনি কোনওভাবেই চেনেন না। 

বর্তমানে নুসরত নিজের অতীত ভুলে এখন যশের সঙ্গে ঘর বেঁধেছেন। ছোট্ট ছেলে ঈশানকে নিয়ে সুখের সংসার যশরতের। নিখিলের কথায়, ‘ও ভালো থাকুক সবসময় চাই, ও অন্যের সঙ্গে থেকেছে, ওদের সন্তান হয়েছে, আমি তো কোনওদিনই কিছু বলিনি’। আপতত নিজের ব্যবসার কাজ নিয়ে ভালোই ব্যস্ত নিখিল। সম্প্রতি পুরুষদের জন্য ডিজাইনার পোশাকের সম্ভার নিয়ে নতুনভাবে উপস্থিত হয়েছেন তিনি।এখন তাঁর ‘রাঞ্ঝ’ কালেকশনের বিজ্ঞাপনী প্রচারের মুখও তিনি। তাই ব্যবসায়ীর পাশাপাশি এখন মডেলও নিখিল। তাই অতীত ভুলে এখন সামনে এগিয়ে যাওয়ায়ই লক্ষ্য নিখিলের। 

Related Articles

Back to top button