টলিউডনিউজবিনোদনরাজ্য

‘আজকে যিনি তেরঙ্গাভক্ত কাল রামভক্ত হয়ে যাবে’, বিজেপির তোপের মুখে গায়ক নচিকেতা

গায়ক নচিকেতা চক্রবর্তী ( Nachiketa chakraborty) কেরিয়ারের শুরু থেকেই জীবনমুখী গানের জন্য বিখ্যাত। তাঁর গানে সময় থমকে দাঁড়ায়। নিরাশাও বাঁচার কারণ খুঁজে পায় তাঁর সঙ্গীতে। এবার সেই নচিকেতাও পড়লেন বিজেপির তোপের মুখে। 28 শে জানুয়ারি বর্ধমান পৌর উৎসব মঞ্চে ছিল নচিকেতার অনুষ্ঠান। বরাবর নচিকেতার অনুষ্ঠান মানেই বিরাট জনসমাগম। সেই মঞ্চ থেকে তিনি নিজের তৈরী গান ‘আজকে যিনি তেরঙ্গাতে, কাল ভক্ত রামে’ গাইলেন। তাঁর এই গানটি বিখ্যাত ও বহুলচর্চিত। কিন্তু বর্তমান রাজনৈতিক সময়ে নচিকেতার গাওয়া সেই গানের কথা নিয়েই সূত্রপাত হলো বিতর্কের।

এই গানটি গাওয়ার সঙ্গেই নিজের স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতে নচিকেতা কিছু অশালীন শব্দ ব্যবহার করে নচিকেতা বলেন, যাঁরা নিজেদের চরিত্রবান ভাবছেন, তাঁরা নিজেরা জানেন না, তাঁরা আসলে কি! নচিকেতা নিজেকে চরিত্রহীন বলেন এবং জানান এটাই তাঁর প্রেমে পড়ার কারণ। নচিকেতার বলা কথা নিয়ে বিতর্ক আরো জোরদার হয়ে ওঠে। জেলা বিজেপির যুব মোর্চার সভাপতি শুভম নিয়োগী (Shubham niyogi) ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সেলিব্রিটি এবং শিল্পীদের নিজেদের মর্যাদারেখার মধ্যে থাকা উচিত, বর্ধমান উৎসব এখন তৃণমূল উৎসবে পরিণত হয়েছে।

2000 সালে বাম আমলে বর্ধমান উৎসবের সূচনা হয়েছিল। দশদিন ধরে হয় জমজমাট বর্ধমান উৎসব। তৃণমূল আমলে বর্ধমান পৌরসভার উদ‍্যোগে আয়োজিত বর্ধমান উৎসবের নাম পাল্টে রাখা হয় ‘বর্ধমান পৌর উৎসব’। প্রত্যেক বছর সেলিব্রিটিরা এসে এই মঞ্চে নিজেদের বক্তব্য রাখেন। নচিকেতার বিতর্কিত মন্তব্য প্রসঙ্গে জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র প্রসেনজিৎ দাস(Prasenjit Das) বলেছেন, বাংলার মানুষ নিজেদের সংস্কৃতি সম্পর্কে অবগত। সুতরাং শিল্পীরা কি গান গাইবেন বা কি বক্তব্য রাখবেন, তা ঠিক করা বিজেপির কাজ নয়। তাছাড়া এটা বাংলার কালচার নয়। আপাতত বোঝা যাচ্ছে, নচিকেতার বক্তব্য নিয়ে বর্ধমানের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে এই চাপান-উতোর চলতেই থাকবে। প্রকৃতপক্ষে চিরকেলে বিতর্কিত নচিকেতা জানেন, বিতর্ক সৃষ্টি করাও একটি শিল্প।

Related Articles

Back to top button