কলকাতানিউজপলিটিক্স

Dilip Ghosh Removed: বিজেপি রাজ্য সভাপতির পদে আর নেই দিলীপ ঘোষ!

বহুদিন ধরেই চর্চা রাজনৈতিক মহলে চর্চা চলছিল তুঙ্গে। দিলীপ ঘোষের পর পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির রাজ্য সভাপতি কে হবেন তা নিয়ে আগ্রহ কম ছিল না রাজনৈতিক মহলের৷ তবে সোমবার সব জল্পনার অবসান ঘটেছে। সবাইকে পেছনে ফেলে পরবর্তী রাজ্য সভাপতির নাম ঘোষিত হল গেরুয়া শিবিরের তরফ থেকে। এবার দিলীপ ঘোষের জুতোয় পা গলাতে চলেছেন বালুরঘাটের সাংসদ সুকান্ত মজুমদার।

খানিকটা অপ্রত্যাশিতভাবেই দিলীপ ঘোষের জায়গায় নাম লেখালেন সুকান্ত মজুমদার। পাশাপাশি দলের সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি হলেন দিলীপ ঘোষ। অর্থাৎ মুকুল রায়ের ছেড়ে যাওয়া জায়গায় নতুন করে সেই জায়গায় অভিষিক্ত হলেন দিলীপ। সুকান্ত মজুমদার ছিলেন বিজেপির বালুরঘাটের সাংসদ। সোমবার বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার তত্ত্বাবধানেই এই রদবদল ঘটেছে।

তবে আজকের ঘটনা নয়, বহুদিন ধরেই কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সুনজর ছিল বালুরঘাটের সাংসদ সুকান্তের ওপর। এদিকে রাজ্য বিজেপিতেও সেভাবে তাঁর বিরোধী বলে কেউ নেই। তাছাড়া রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের হাত মাথায় থাকায় অনেকেই ভেবে নিয়েছিলেন যে, দিলীপের উত্তরসূরি হতে চলেছেন সুকান্ত। গত আগস্ট মাসে দিলীপ ঘোষ বিজেপি নাড্ডার সঙ্গে বৈঠকে জানিয়েছিলেন, সুকান্তই পারবেন বঙ্গ বিজেপিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে।

তবে সভাপতি পদে নিয়োগে একেবারে যে প্রতিযোগিতা ছিল না, তা নয়। বিজেপির রাজ্য সভাপতি হওয়ার দৌড়ে ছিলেন ডাঃ অনির্বাণ গাঙ্গুলি, বিশ্ব হিন্দু পরিষদের সর্বভারতীয় সহ সভাপতি সচিনন্দ্রনাথ সিনহা। ২০১৯ সালে লোকসভা নির্বাচনে বালুরঘাট লোকসভা থেকে জয়ী হয়েছিলেন সুকান্ত। আর সেই সুকান্ত এখন বিজেপির রাজ্য সভাপতি। গেরুয়া শিবিরের এই নতুন সভাপরি ঘোষণাতে র আনন্দে মেতেছেন গোটা বঙ্গীয় বিজেপী। দিলীপ ঘোষ এ প্রসঙ্গে জানিয়েছেন “নতুন প্রদেশ সভাপতিকে অনেক অভিনন্দন, আমাদের সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব নেয়, এটাও নিয়েছে।”

Related Articles

Back to top button